নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, আমার প্রতিপক্ষ অপরাজনীতির হোতারা আমাদের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ২৬টি মিথ্যা মামলা করেছে। আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে পৌরসভা কার্যালয়ে দুই হাজার গুলি করেছে। এ পর্যন্ত আমাকে ছয়বার হত্যা করার চেষ্টা করেছে। আমার ১১০ জন নেতাকর্মীকে গুলি করা হয়েছে।

শনিবার বিকেলে তিনি কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সিরাজপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে বসুরহাট পৌরসভা মিলনায়তনে আয়োজিত ঈদ-পরবর্তী সৌজন্য সাক্ষাৎ ও চা-চক্র অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। সিরাজপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাইন উদ্দিন পলাশের সভাপতিত্বে ও আওয়ামী লীগ নেতা মজিবুর রহমান মোহনের সঞ্চালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন কাদের মির্জার অনুসারী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইস্কান্দার হায়দার চৌধুরী বাবুল, সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবু নাছের, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ইউনুছ, বসুরহাট পৌরসভা আওয়ামী লীগ সভাপতি জামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের প্রমুখ।

কাদের মির্জা আরও বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রাণপ্রিয় নেতা ওবায়দুল কাদেরের বিরুদ্ধে কেউ নোংরা মন্তব্য করলে পার পাবেন না। তিনি বলেন, নোয়াখালীর রাজনীতি নিয়ে আমাদের মধ্যে যে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে, তার প্রধান কারণ একরামতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চাওয়া। নোয়াখালীর এই অপরাজনীতির হোতা যার হাতের অস্ত্রে আমাদের দু'জনসহ মোট ২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার কারণে নোয়াখালীর আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ফাটল তৈরি হয়েছে।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাই কাদের মির্জা তার প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগের রাজনীতিবিদদের উদ্দেশে বলেন, আমি ক্ষমা করে দেব, কেউ যদি অতীতের ভুলভ্রান্তি থেকে ফিরে এসে আমাদের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করতে চায়। দরজা খোলা আছে, তবে যোগ্যতা দিয়ে নেতৃত্বে আসতে হবে এবং সরি বলতেই হবে।

মন্তব্য করুন