নারী-শিশু নির্যাতন ও যৌতুক মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিকে আটক করার পর আসামিকে ছিনিয়ে নিতে পুলিশের সঙ্গে মারামারি করেছে তার স্বজনরা। এতে আহত হয়েছেন দুই পুলিশ সদস্য। পালিয়ে যায় আসামি। পরে পুলিশ আসামিসহ চারজনকে আটক করে। এ ঘটনা ঘটেছে ফুলবাড়ী উপজেলার অধুনালুপ্ত দাসিয়ার ছড়া ছিটমহলের টংকার মোড় এলাকায়।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, টংকার মোড় এলাকার আফছার আলীর ছেলে মিন্টু মিয়া নারী শিশু নির্যাতন ও যৌতুক মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি। রোববার রাতে ফুলবাড়ী থানার এএসআই আনোয়ার হোসেন ও বিদাপ চন্দ্র রায় সাদা পোশাক পরে ওই এলাকায় যান এবং মিন্টু মিয়াকে আটক করেন। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগে মিন্টুর স্বজনরা মিন্টুকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এতে আহত হন দুই পুলিশ সদস্য। এদিকে হট্টগোলের মাঝে কৌশলে হ্যান্ডকাফ পরা অবস্থায় পালিয়ে যায় মিন্টু। পরে ফুলবাড়ী থানার অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তল্লাশি করে। এ সময় মিন্টুসহ চারজন আটক হয়। অন্যরা হলো- ওই এলাকার ওবায়দুল হকের ছেলে সেলিম মিয়া, মনির উদ্দিনের ছেলে রফিকুল ইসলাম ও ছয়পাল রহমানের ছেলে মজিদুল ইসলাম।

ফুলবাড়ী থানার ওসি রাজীব কুমার রায় জানান, পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অপরাধে ২০ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে চারজনকে আটক করা হয়েছে। তাছাড়া অজ্ঞাতপরিচয়ের ৩০ জন রয়েছে। আহত পুলিশ সদস্যদের ফুলবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।