বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন থেকে দুই হরিণ শিকারিকে আটক করেছে বনরক্ষীরা। বৃহস্পতিবার সকালে শরণখোলা রেঞ্জের ডুমুরিয়া টহল ফাঁড়ি সংলগ্ন বলেশ্বর নদ থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটক শিকারিরা হলেন- হানিফ মিস্ত্রি (৪৮) এবং তার ছেলে মাসুম মিস্ত্রি (২৮)। তাদের বাড়ি পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার খেতাচিরা গ্রামে।

এসময় শিকারিদের কাছ থেকে একটি ইঞ্জিনচালিত ট্রলার, ১২ কেজি হরিণের মাংস, হরিণের চারটি পা, ২০০ হাত দড়ির ফাঁদ, একটি নৌকা, ৫০ফুট ছান্দি জাল, একটি দা, একটি চাপাতি, একটি কুড়ালসহ বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করা হয়।

পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বনসংরক্ষক (এসিএফ) মো. জয়নাল আবেদীন জানান, হরিণের মাংস পাচারের গোপন সংবাদ পেয়ে বগী স্টেশন কর্মকর্তা মো. সাদিক মাহামুদ ও ডুমুরিয়া টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে বনরক্ষীদের তিনটি দল ভোররাত থেকে বলেশ্বর নদে অবস্থান নেয়। সকাল ৬টার দিকে একটি ইঞ্জিনচালিত ট্রলার সুন্দরবন থেকে বের হলে সেটা থামিয়ে তল্লাশি করেন বনরক্ষীরা। এ সময় ওই ট্রলার থেকে হরিণের মাংস, শিকারের সরঞ্জাম, বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করা হয়। সেই সঙ্গে শিকারি দলের দুই সদস্যকে আটক করা হয়। এসময় বনের মধ্যে একটি ডিঙি নৌকায় থাকায় আরো ৪-৫ জন শিকারি পালিয়ে যায়।

এসিএফ জয়নাল আবেদীন জানান, জব্দকৃত ট্রলার, মাংস ও সরঞ্জামসহ আটক দুই শিকারিকে বিকেল তিনটার দিকে শরণখোলা রেঞ্জ অফিসে আনা হয়। পরে আটকদের বিরুদ্ধে বন আইনে মামলা দিয়ে বাগেরহাট আদালতে পাঠানো হয়েছে। উদ্ধার হওয়া হরিণের মাংস রেঞ্জ অফিস চত্বরে মাটিচাপা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।