ময়মনসিংহের গৌরীপুরে রিফাত নামে এক শিশুকে মোবাইল চুরির অভিযোগে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ এসেছে। 

নয় বছর বয়সী রিফাতকে নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর বৃহস্পতিবার বিকালে পুলিশ অভিযুক্ত মা-ছেলেকে আটক করেছে।

আটক হওয়া ব্যক্তিরা হলেন,ডৌহাখলা ইউনিয়নের তাতকুড়া গ্রামের প্রয়াত বারেক মিয়ার স্ত্রী ফাতেমা বেগম ও তার ছেলে হিমেল মিয়া। 

গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল হালিম সিদ্দিকী সমকালকে জানিয়েছেন, শিশুটিকে নির্যাতনের অভিযোগে মা-ছেলেকে আটক করা হয়েছে।তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আবদুল হালিম সিদ্দিকী জানান, গত ৪ জুন উপজেলার রামগোপালপুর ইউনিয়নের মধুবন আদর্শ গ্রামে (গুচ্ছ গ্রাম) নির্যাতনের ঘটনাটি ঘটেছে। 

নির্যাতনের শিকার শিশু রিফাত গুচ্ছগ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে। সে স্থানীয় রামগোপালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। তার মা প্রবাসী শ্রমিক।

সুরুজ মিয়া সমকালকে জানান, ফাতেমা বেগমের ভাই হিমেল আম পাড়ার কথা বলে ডেকে দিয়ে যায় রিফাতকে। আম পাড়তে উঠার পর গাছ থেকে নামিয়ে রিফাতকে মোবাইল চুরির অপবাদ দিয়ে রশি দিয়ে গাছে বাঁধা হয়। এরপর চালানো হয় নির্যাতন। হিমেল তার মোবাইল ফোন চুরি হয়েছে বলে অভিযোগ তুলে।

রিফাতের উপর নির্যাতনের ঘটনা মোবাইলে ধারণ করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে  ছড়িয়ে দেন স্থানীয় এক যুবক। পরে তার সূত্র ধরেই আটক করা হয় ফাতেমা বেগম ও তার ছেলে হিমেল মিয়াকে।

নির্যাতিত শিশুটির বাবা সুরুজ মিয়া বলেন, ‘নির্যাতনের পর আমার ছেলে বেশ কয়েকদিন জ্বরে ভুগেছে।পরে আমি স্থানীয়দের কাছে বিচার চাই। তারা আমাকে উপযুক্ত বিচারের আশ্বাসও দিয়েছিলেন।’



মন্তব্য করুন