আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনা করে আবারও বক্তব্য দিয়েছেন তার ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা। 

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট পৌরসভার মেয়র কাদের মির্জা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে কোম্পানীগঞ্জের প্রশাসনকে নিরপেক্ষ করা না হলে পরিণতি হবে ভয়াবহ।

বৃহস্পতিবার সকালে ফেসবুক লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমি আমার অসুস্থতার জন্য উদ্বিগ্ন নই; আমি উদ্বিগ্ন কোম্পানীগঞ্জের মানুষের জন্য, আমার দলের নেতাকর্মীদের জন্য। গত ৯ মার্চ রাতে আমার ওপর হামলা হয়েছিল। সে সময় মানববেষ্টনী দিয়ে নেতাকর্মীরা আমাকে বাঁচিয়েছেন, তাদের অস্ত্রের মুখে ফেলে দিয়ে আমি যুক্তরাষ্ট্রে যেতে পারি না। আমার বিরুদ্ধে শুধু কোম্পানীগঞ্জে ষড়যন্ত্র হচ্ছে তা নয়, ষড়যন্ত্র যুক্তরাষ্ট্রেও হচ্ছে।

চিকিৎসার জন্য বৃহস্পতিবার ভোরে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওনা দেওয়ার কথা ছিল কাদের মির্জার। তবে বুধবার তিনি যাওয়ার এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন।

ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশে করে কাদের মির্জা বলেন, 'ওবায়দুল কাদের সাহেব ভানুমতির খেল কার সঙ্গে করেন। ১৯৭১ সালে খিজির হায়াত খান আপনাকে ভেল্ক্কি দিয়েছে আর আপনি সে ভেল্ক্কির ভয়ে নোয়াখালীতে পালিয়ে গিয়ে মাহমুদুর রহমান বেলায়েতের কাছে আশ্রয় নিয়েছেন। ভেল্ক্কিবাজিতে আমি ভয় পাওয়ার লোক নই এবং চলে যাওয়ার লোক নই।'

সেতুমন্ত্রীর উদ্দেশে কাদের মির্জা আরও বলেন, আপনাকে এক সপ্তাহের সময় দিলাম। এর মধ্যে কোম্পানীগঞ্জের প্রশাসনকে নিরপেক্ষ করতে হবে, না হলে পরিণতি হবে ভয়াবহ। আপনার স্ত্রী ইশরাতুন্নেছা কাদের দেশের ১০ জন দুর্নীতিবাজের একজন। আমি যদি প্রমাণ করতে না পারি, হিজরত করব।

ফেসবুক লাইভে কাদের মির্জা আরও বলেন, বুধবার বিকেলে তিনি খবর পেয়েছেন, কোম্পানীগঞ্জে তার ভাগিনা মাহবুবুর রশীদ মঞ্জুর বাসায় ৭০-৮০ জনের মিটিং হয়েছে। মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, তিনি যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার পর কোম্পানীগঞ্জে তাণ্ডব সৃষ্টি করা হবে এবং তার অনুসারীদের গুলি করে অথবা মারধর করে হোক, ঘরে ঢুকিয়ে দেওয়া হবে। এরপর তারা বসুরহাট পৌরসভা কার্যালয় দখল করে নেবে। কাউন্সিলরদের একত্র করে কাদের মির্জার বিরুদ্ধে অনাস্থা এনে একজনকে মেয়র হিসেবে বসাবে।

বিষয় : আবদুল কাদের মির্জা বসুরহাট পৌরসভা নোয়াখালী

মন্তব্য করুন