রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে মায়ের চিকিৎসা নিতে এসে মারধরের শিকার হয়েছেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী রেজওয়ানুল করিম রিয়াদ। তার ছোট ভাই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রাশেদ করিমকেও মারধর করা হয়েছে। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে রমেকের ইমাজেন্সি বিভাগের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, রিয়াদ তার ছোট ভাইসহ অসুস্থ মাকে ভর্তি করার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে যান। সেখানের দায়িত্বশীলরা ৩০ টাকার জায়গায় অতিরিক্ত টাকা দাবি করলে রিয়াদ অতিরিক্ত টাকা দিতে অস্বীকার করেন। এতে একযোগে ১৫ থেকে ১৬ জন এসে রিয়াদকে মারধর করতে শুরু করে। একইসঙ্গে তার ছোট ভাই রাবি শিক্ষার্থী রাশেদ করিমকেও মারধর করা হয়।

ভুক্তভোগী রেজওয়ানুল করিম রিয়াদ বলেন, মায়ের ডায়ালাইসিস করার জন্য রমেক  হাসপাতালে গিয়েছিলাম। মাকে ভর্তি করতে ইমার্জেন্সি বিভাগে গেলে অতিরিক্ত টাকা চাওয়া হয়। তা না দেওয়ায় প্রায় ১৫ থেকে ১৬ জন আমাকে বেধরক মারধর করেন।

তিনি আরও বলেন, এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিচয় দিলে তারা গুম করে ফেলার হুমকি দেন। আজ মায়ের চিকিৎসা নিতে এসে বিনা কারণে মারধরের শিকার হলাম। আমি এর বিচার চাই।

তার ছোট ভাই রাশেদ করিম বলেন, মোবাইল দিয়ে আমি তাদের ছবি তোলার চেষ্টা করলে তারা আমাদের মোবাইল ছিনিয়ে নেন। পরে তারা চলে যাওয়ার সময় আবার মোবাইল ফেরত দিয়ে যান।

এ বিষয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর গোলাম রব্বানী বলেন, এ ঘটনা শোনার সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করছি।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে মেডিকেল কর্তৃপক্ষের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।