নিজের ও পরিবারের সদস্যদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩নং ওয়ার্ডের আলোচিত কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশদের স্ত্রী আফরোজা খন্দকার লুনা। গত বৃহস্পতিবার রাতে তিনি ফতুল্লা মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরিটি করেন। কাউন্সিলর খোরশেদ আলম করোনাকালে নানা জনহিতৈষী কাজ করে দেশব্যাপী আলোচিত।

আফরোজা খন্দকার লুনার অভিযোগ, গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে তার মাসদাইরের ৪২ নম্বর শেরেবাংলা সড়কের বাসায় কে বা কারা এসে তৃতীয় তলার কলিং বেল বাজাতে থাকে। বাসার ভেতর থেকে লুনা এবং তার ছেলে মেয়েরা পরিচয় জানতে চাইলেও কোনো উত্তর মেলেনি। পরে তারা সবাই ভয়ে তৃতীয় তলা থেকে দ্বিতীয় তলায় চলে আসেন।

এরপরও তৃতীয় তলায় কলিং বেল বাজতে থাকে। একপর্যায়ে দরজায় সজোরে ধাক্কা দিতে থাকে। তখন লুনাসহ পরিবারের সদস্যরা চিৎকার করে তাদের পরিচয় জানতে চাইলেও কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি।

এ পরিস্থিতিতে ভোরে বাধ্য হয়ে খোরশেদ আলমের মেয়ে নাবিলা জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে ঘটনার বিস্তারিত জানান। পরে দ্রুত ফতুল্লা থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায় এবং পুরো বাড়ি তল্লাশি করে। ততক্ষণে অজ্ঞাত পরিচয়ের দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

এছাড়া লুনা আরও উল্লেখ করেন, গত ৩ থেকে ৪ দিন ধরে তাদের বাসার আশপাশে একটি ড্রোন উড়তে দেখা যাচ্ছে। এতে তার ধারণা হচ্ছে, অজ্ঞাত কোনো ঘাতক বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করে এমন করছে। 

এছাড়া এক ব্যক্তি খোরশেদ আলমের ওয়ার্ড সচিব আলী সাবাব টিপুর ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন করেও লুনা এবং পরিবারের সদস্যদের মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক রকিবুজ্জামান বলেন, আফরোজা খন্দকার লুনা সাধারণ ডায়েরি করেছেন। ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।