শেরপুরের শ্রীবরদী উপজেলার পাহাড়ি জনপদ বালিজুরি খ্রিস্টানপাড়ার চুকচুকি গ্রামে এক কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

লোকলজ্জার ভয়ে কিশোরীর পরিবার বিষয়টি চেপে যাওয়ার চেষ্টা করলেও স্থানীয় এক ব্যক্তির সহায়তায় পুলিশ এক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে।

শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস সমকালকে জানান, গত বুধবার বিকেলে চুকচুকি গ্রামের কিশোরী তার আত্মীয়ের করলা ক্ষেতে ঘুরতে যায়। এসময় পানির তেষ্টা পেলে কর্মরত কৃষকদের কাছে জানতে চায়- কোথায় পানি পাওয়া যাবে। পরে তাকে পানি খাওয়ানোর কথা বলে চার কৃষক তাকে ধর্ষণ করেন।

তিনি জানান, পরে কিশোরী বাড়ি গিয়ে গোসল করে ফেলে ও ঘটনা লুকায়।পরে ধর্ষণের ঘটনার একজন প্রত্যক্ষদর্শী তাকে (ওসি) বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে ঘটনাটি জানালে পুলিশ কিশোরীর বাড়ি যায়। এ সময় কিশোরীর পরিবার ঘটনাটি চেপে যাওয়ার চেষ্টা করে। তবে জেরার এক পর্যায়ে কিশোরী পুলিশের কাছে বিস্তারিত জানায়।

ওসি আরও জানান, কিশোরীর বাবা ঘটনা শুনে ঢাকা থেকে এসে শ্রীবরদী থানায় ধর্ষণের অভিযোগে চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। শুক্রবার ভোরে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি সুন্দর আলীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

তিনি বলেন, ‘এসপি স্যারের নির্দেশে আমরা বাকি আসামিদের ধরতে ব্যাপক তল্লাশি চালাচ্ছি। ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শেরপুর জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’