ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার চৌরাস্তা বাসস্ট্যান্ডের পাশের একটি বাড়ি থেকে এক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার বিকালে পুলিশ তার হাত-পা বাঁধা ও মুখে বালিশচাপা অবস্থায় লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

নিহত ব্যক্তির নাম জাহিদ মিয়া (২৮)। সে হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার গানফোর গ্রামের মাহতাব তালুকদারের ছেলে।

জানা যায়, জাহিদ মিয়া তার এলাকার আরও পাঁচজনকে নিয়ে নান্দাইল চৌরাস্তার পাশে অরণ্যপাশা গ্রামের হাবিবুর রহমানের ওই বাড়িটি ৭ হাজার টাকায় ভাড়া নেন। এখানে থেকে তারা গ্রামে গ্রামে ফেরি করে কাঠের খেলনাসহ তৈজসপত্র বিক্রি করতেন। নিহত জাহিদ ছিলেন ওই পাঁচজনের মহাজন। তিনি মালামাল এনে দিতেন এবং বিক্রিত টাকা আদায় করতেন।

জাহিদের সঙ্গে থাকা কামরুল হাসান জানান, বৃহস্পতিবার সবাই রাতের খাবার খেয়ে পৃথক দুটি কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। শুক্রবার জাহিদ ঘুম থেকে উঠতে দেরি করায় দুপুর ১টার দিকে তিনি ডাকতে গিয়ে দেখেন ঘরের প্রধান দরজায় তালা লাগানো থাকলেও ভিতরের দরজাটি খোলা। ডাকাডাকিতে কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে তিনি একটি বাঁশ ঢুকিয়ে দরজা ফাঁক করে মেঝেতে জাহিদের লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইসচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান আকন্দ জানান, দেখে মনে হচ্ছে- তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, আলামত সংগ্রহ করতে ময়মনসিংহ থেকে ক্রাইমসিন বিভাগের লোকজন আসছেন।