নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার গাড়িবহরে গুলির ঘটনায় তিন জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। 

কাদের মির্জার একান্ত সহকারী ও বসুরহাট পৌরসভা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল হামিদ সমকালকে জানান, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শুক্রবার বেলা ১১টায় কোম্পানীগঞ্জের মুছাপুর ইউনিয়নের আনন্দ বাজারে পথসভা করেন মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। 

এরপর মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম চৌধুরী শাহীন ও সাবেক ইউপি মেম্বার ইসমাইল হোসেন হেঞ্জুর নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জনের দল কাদের মির্জার গাড়িবহরে গুলি করে বলে অভিযোগ আবদুল হামিদের।

এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হন-শাহাদাত হোসেন, আবু সায়েম ও আবুল কাশেম। 

কোম্পানীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমরা মেয়রের গাড়ি বহরে ছিলাম। মুষলধারে বৃষ্টিপাত হচ্ছিল, চারিদিকে অন্ধকারের মত। এসময় প্রতিপক্ষরা গুলি ছুঁড়ে পালিয়ে যায়।’

অভিযুক্ত নজরুল ইসলাম চৌধুরী শাহীন সমকালকে বলেন, ‘ঘটনার সময় আমি বাড়িতে ঘুমাচ্ছিলাম। এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।পরে জানতে পারি,কাদের মির্জার অনুসারী রাসেল ও পিচ্চি মাসুদ এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করতে তিন রাউন্ড গুলি ছুঁড়েছে।’