জয়পুরহাটে ৩২ বছর পর শিশু অপহরণ মামলার ৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত এক পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তার নাম আব্দুল মতিন মন্ডল (৬০)। মঙ্গলবার সকালে কালাই থানা পুলিশ বগুড়ার শাহজাহানপুর উপজেলার জালশুকা গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। মতিন মন্ডল কালাই উপজেলার ইটাইল গ্রামের মৃত আব্দুল মালেক মন্ডলের ছেলে।

অপরহণ মামলার বাদী উপজেলার ইটাইল গ্রামের ফজলুল হক বলেন, আমার ছেলের বয়স যখন ৭ বছর তখন ওরা আমার ছেলেকে অপহরণ করেছিল। অপহরণের ১৩ দিনের মাথায় পুলিশ আমার ছেলেকে উদ্ধার করে। ওই মামলায় আসামি মতিন ও সাকাম। দু’জনেরই ৭ বছর করে সাজা হয়েছিল। তখন থেকেই পলাতক মতিন। পরে সাকাম জেলখানা থেকে সাজা খেটে এসে বাড়িতে মারা গেছে। আর মতিন পলাতক ছিল। 

তিনি আরও বলেন, ওই মামলার কথা এখন আর মনে পড়ে না তেমন। হঠাৎ মঙ্গলবার সকালে কালাই থানার পুলিশ জানায়, আপনার মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি মতিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুনে বেশ ভালোই লাগলো।

পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা জানান, শিশু অপহরণ মামলাটি ১৯৮৯ সালের জুলাই মাসে জয়পুরহাট জেলা দায়রা ও জজ আদালতে দায়ের হয়েছিল। সেই সময় বিচারক শিশু অপহরণ মামলার আসামি আব্দুল মতিন মন্ডলকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দেন। এরপর থেকে পলাতক ছিলেন মতিন। তথ্য প্রযুক্তি ও গোপন তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকালে অভিযান চালিয়ে বগুড়ার শাহজাহানপুর উপজেলার জালশুকা গ্রামে শশুরবাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে কালাই থানার পুলিশ। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।


বিষয় : জয়পুরহাট শিশু অপহরণ গ্রেপ্তার

মন্তব্য করুন