মিয়ানমারের সীমান্ত পেরিয়ে নাফ নদী সাঁতরে বাংলাদেশের সীমানায় ঢুকে পড়া দুইটি বুনো হাতি এখন শাহপরীর দ্বীপে অবস্থান করছে।

হাতি দুটিকে বনাঞ্চলে ফেরত পাঠাতে কাজ করছেন দক্ষিণ বন বিভাগ টেকনাফের এলিফ্যান্ট রেসপন্স টিমের সদস্যরা।এ টিমে নেতৃত্ব দিয়েছেন দক্ষিণ বন বিভাগ টেকনাফের রেঞ্জ কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক আহমেদ।

সৈয়দ আশিক আহমেদ সমকালকে জানান, শনিবার সন্ধায় টেকনাফের নাফ নদীর পাশে প্যারাবনে দুইটি মা হাতি এদিক-ওদিক ছোটাছুটি করছিল। বন বিভাগের এলিফ্যান্ট রেসপন্স টিমের সদস্যরা টানা ৫ ঘণ্টা চেষ্টার পর জালিয়াপাড়া প্যারাবন থেকে উদ্ধার করে হাতি দুটিকে বনের ভেতরে পাঠান। কিন্তু রোববার সকালে হাতিরা বন থেকে বেরিয়ে আবার নাফ নদে নেমে পড়ে।

রোববার বিকেলে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ জেটি ঘাট সংলগ্ন নাফনদে বালুর চরে হাতি দুটি দেখে ভীড় করেন স্থানীয় লোকজন।
বন বিভাগের কর্মকর্তাদের ধারণা, খাদ্যের অভাবে মিয়ানমার থেকে নাফ নদী দিয়ে বনাঞ্চলে প্রবেশের চেষ্টা করছিল হাতি দুটি।

শাহ পরীর দ্বীপ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই যায়েদ হোসাইন সমকালকে বলেন, ‘লোকজন যাতে ভীড় করতে না পারে, সেজন্য পুলিশ সেখানে উপস্থিত রয়েছে। এছাড়া বন বিভাগের কর্মকর্তারা রয়েছেন। হাতি দুটি বনাঞ্চলে অভ্যন্তরে ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে।’