গাড়িনির্মাতা কোম্পানি নিশানের সাবেক চেয়ারম্যান কার্লোস ঘোনকে জাপান থেকে পালাতে সহযোগিতা করায় যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর স্পেশাল ফোর্সের সাবেক সদস্য মাইকেল টেইলর এবং তার ছেলে পিটার টেইলরকে কারাদণ্ড দিয়েছেন টোকিওর একটি আদালত।

মাইকেল টেইলরকে দুই বছরের ও তার ছেলে পিটারের এক বছর আট মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। খবর সিএনএনের

একটি বাদ্যযন্ত্রের বাক্সের ভেতরে লুকিয়ে কার্লোস ঘোনের সাড়া জাগানো সেই পলায়নপর্বের দেড় বছর পর জাপানের আদালতে এই প্রথম কোনো রায় এলো। 

মাইকেল টেইলর ও তার ছেলে পিটার টেইলর বাদকের বেশে বিমানে তুলে দিয়েছিলেন বাক্সবন্দি কার্লোস ঘোনকে। 

নিশান বার্ষিক বেতন গোপন করার এবং কোম্পানির তহবিলের অপব্যবহারের অভিযোগ আনলে ২০১৮ সালে গ্রেপ্তার করা হয় কার্লোস ঘোনকে। সেই অভিযোগ এখন পর্যন্ত অস্বীকার করে আসছেন তিনি।

গ্রেপ্তারের সময় ঘোন জাপানি গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ছিলেন। একই সময়ে তিনি ফ্রান্সের কোম্পানি রেনোরও চেয়ারম্যান ছিলেন।

পরে জামিন পেলেও ঘোনকে টোকিওতে গৃহবন্দি করে রাখা হয়। মামলার তদন্ত চলার মধ্যেই ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষে বড় দিনের ছুটির মধ্যে পালিয়ে নিজের জন্মভূমি লেবাননে চলে যান ঘোন। সেই ঘটনা সে সময় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে।

জাপানের সঙ্গে লেবাননের বন্দি বিনিময় চুক্তি না থাকায় ঘোনের মুক্ত থাকতে সমস্যা হয়নি। কিন্তু তাকে সহায়তা করায় যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক টেইলর ও তার ছেলেকে জাপানি কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেয় মার্কিন প্রশাসন।