সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলায় প্রায় ২০০ ফুট লম্বা ঘুড়ি বানিয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করে দিয়েছেন স্থানীয় কাঠমিস্ত্রি আব্দুল আলিম। নানা রঙে মেশানো ঘুড়িটি আকাশে উড়ছে আর কৌতূহলী মানুষজন মাঠে ভিড় করছেন এটি দেখতে।

আকাশে উড়ানো ঘুড়িটি দেখতে অনেকটা সাপের মতো মনে হচ্ছে। অনেকেই উল্লাসিত বিশাল আকারের ঘুড়িটি দেখে। এমনকি আব্দুল আলিমের বাড়িতেও বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষ আসছে ঘুড়িটি দেখতে।

আব্দুল আলিম উল্লাপাড়ার দূর্গানগর ইউনিয়নের রাজমান গ্রামের বাসিন্দা। তিনি বলেন, লকডাউনের সময় কোনো কাজ না থাকায় বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে ইউটিউব দেখে বড় মাপের ড্রাগন আকৃতির একটি ঘুড়ি বানানোর উদ্যোগ নিই। বাঁশ, বিভিন্ন রঙের কাগজ, প্লাস্টিক, সুতা ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী দিয়ে প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে ঘুড়িটি বানিয়েছি। এটি এখন আকাশে উড়ানো হচ্ছে। দেখতে খুব আকর্ষণীয়।

তিনি বলেন, বহু লোক ঘুড়িটি উড়ানোর সময় ভিড় জমাচ্ছেন। এর নাম দিয়েছি ড্রাগন। ড্রাগনের মতোই তৈরি করেছি এটিকে। এসময় দেশের সবচেয়ে বড় ঘুড়ি এটি হবে বলে দাবি করেন আব্দুল আলিম।

দূর্গানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আফছার আলী জানান, ঘুড়িটি দেখতে একেবারেই ড্রাগনের মতো। বেশ আকর্ষণীয়। ঘুড়ি উড়ানোর সময় বহু মানুষ সেখানে ভিড় করছেন। চেয়ারম্যান নিজেও ঘুড়িটি দেখেছেন বলে জানিয়েছেন।