খুলনায় এক নারীকে বিয়ে করে তা অস্বীকার ও পরে খুনের হুমকির অভিযোগ দায়েরের পর পাইকগাছা থানার ওসি (তদন্ত) ইব্রাহিম হোসেন সোহেলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

খুলনার পুলিশ সুপার মো. মাহবুব হাসান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সমকালকে জানান, গত ১৫ জুলাই ভুক্তভোগী নারী পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। ওই দিনই ইব্রাহিম হোসেন সোহেলকে পুলিশ লাইনে ক্লোজড (প্রত্যাহার) করা হয়।

তিনি বলেন,‘অভিযোগের বিষয়টি সিনিয়র এক পুলিশ কর্মকর্তা তদন্ত করছেন। প্রশাসনিক কারণে সোহেলকে ক্লোজড করা হয়েছে।’

পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগী নারী উল্লেখ করেন, ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে তার প্রথম স্বামী মারা যান। 

তাদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। বাবা পুলিশ কর্মকর্তা হওয়ায় আগেই ওসি সোহেলের সঙ্গে তার পরিচয় ছিলো। একপর্যায়ে সোহেল তাকে বিবাহের প্রস্তাব দেন। রেজিস্ট্রি ছাড়া ৫ লাখ টাকা কাবিনে কলমা পড়ে বিয়ে হয়। 

ওই সময় চাকরি বাঁচানোর কথা বলে সোহেল বিয়ে রেজিস্ট্রি করতে চাননি। এরপর থেকে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক করেন। সম্প্রতি তার প্রথম স্ত্রী বিষয়টি জেনে গেলে সোহেল তাকে বিয়ের বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন। 

ভুক্তভোগী নারী বলেন, ‘গত ১৫ জুলাই সোহেল আমার বাসায় এসে আমার সাথে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক করার চেষ্টা চালায়। বিষয়টি পুলিশ সুপারকে অবহিত করলে তিনি সমাধানের আশ্বাস দেন। এ ঘটনার পর থেকে সোহেল আমাকে হুমকি দিচ্ছে।’

অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা ইব্রাহিম হোসেন সোহেল সমকালকে বলেন, ‘সাবেক এক সহকর্মীর মেয়েকে উপকার  করতে গিয়ে ফাঁদে পড়েছি। ওই নারী এখন আমাকে বিয়ে করার জন্য ব্ল্যাকমেইল করছেন। আমার চাকরি, সংসার সবকিছুতে অশান্তি শুরু হয়েছে। ওই নারীকে বিয়ে বা শারীরিক সম্পর্কের পুরো বিষয়টি মিথ্যা।'