তৃতীয় বারের মতো জনপ্রশাসন পদক পেয়েছেন খুলনার সদ্য বিদায়ী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।

মঙ্গলবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের কাছ থেকে জনপ্রশাসন পদক-২০২১ গ্রহণ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে অংশ নেন। 

খুলনা জেলায় কর্মকালীন রুটিন ওয়ার্কের বাইরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি রাজনীতিবিদ ও সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে সমন্বয়ের মাধ্যমে একাধিক মানবিক ও উন্নয়মূলক উদ্ভাবনী উদ্যোগ গ্রহণ করেন হেলাল হোসেন। এর মধ্যে খুলনার উপকূলীয় দাকোপ উপজেলার বানিয়াশান্তা ব্রথেল শিশুদের সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনতে হোস্টেলসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা ছিলো অন্যতম।

এই মানবিক ও উন্নয়নমূলক উদ্ভাবনী উদ্যোগের জন্য করায় দলগতভাবে জনপ্রশাসন পদক-২০২১ প্রদান করা হয়েছে। মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সঙ্গে দলগতভাবে এই পদক পেয়েছেন প্রাক্তন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জিয়াউর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইউসুপ আলী, দাকোপের সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল ওয়াদুদ ও দাকোপের বর্তমান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিন্টু বিশ্বাস এবং খুলনা কালেক্টরেট সহকারী কমিশনার শারমিন জাহান লুনা।

উল্লেখ্য, মোহাম্মদ হেলাল হোসেন এর আগে দুটি ক্যাটাগরিতে জনপ্রশাসন পদক-২০১৯ পান। এছাড়া তিনি ২০১২ সালে শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, আইসিটি সেক্টরে অনবদ্য অবদান রাখায় ২০১৯ সালে তৃতীয় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসে জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ জেলা প্রশাসক, ২০২০ সালে চতুর্থ ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড এওয়ার্ড-২০২০ লাভ করেন।

এছাড়া কর্মক্ষেত্রে  সততা ও স্বচ্ছতার সাথে দায়িত্ব পালন করায় ২০১৮ সালে জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার,  ২০২০ সালে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় প্রবর্তিত মাদার অফ হিউম্যানিটি সমাজকল্যাণ পদক-২০২০ এর জন্য মনোনীত হয়েছেন।

মাত্র দুই বছর ১০ মাস জেলা প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে গত ২৭ জুন খুলনা থেকে বদলি হন মোহাম্মদ হেলাল হোসেন। সরকারি কর্মকর্তা হয়েও খুলনার জেলার উন্নয়নে বিভিন্ন উদ্যোগের কারণে খুলনাবাসীর মনে স্থায়ী জায়গা করে নিয়েছেন তিনি।