ভুয়া চালানের মাধ্যমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে অক্সিজেন চুরি চেষ্টার মামলায় দু'জনকে গ্রেপ্তার করেছে মেট্রোপলিটন পুলিশ। 

তারা হলো- পাবনা জেলার শ্রীপুর পারচিথুলিয়া গ্রামের শাহিদ মেকারের ছেলে সোহেল ফকির ও ভাউডাঙ্গা গ্রামের মোসলেম উদ্দিন মণ্ডলের ছেলে নাছিম হোসেন। 

মঙ্গলবার রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার (অপরাধ) কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে উপপুলিশ কমিশনার আবু মারুফ হোসেন জানান, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোতোয়ালি থানায় অক্সিজেন চুরি চেষ্টার মামলা করার পর তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে পাবনা জেলা থেকে রোববার প্রতারক চক্রের সদস্য সোহেল ও নাছিমকে গ্রেপ্তার করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সোহেল ও নাছিম জানায়, তারা দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে গাড়িচালকদের কাছ থেকে কৌশলে টাকা আত্মসাৎ করে আসছিল। ২৩ জুলাই সকাল ১১টায় সোহেল নিজেকে ডা. রেজাউল করিম পরিচয় দিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে করোনা রোগীর জন্য সরবরাহ করা অক্সিজেনের খালি সিলিন্ডার ঢাকায় পাঠানো ও ঢাকা থেকে আবার রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অক্সিজেন পরিবহনের জন্য ৪০ হাজার টাকায় তিনটি ট্রাক ভাড়া করে। পরদিন দুপুরে তারা হাসপাতালের গেটে এসে ফোন করলে সোহেল আসছি বলে সময়ক্ষেপণ করে এবং বঙ্গবন্ধু সেতুর টোলের জন্য তিন হাজার টাকা বিকাশ করতে বলে। বিকাশে টাকা পাওয়া মাত্রই সোহেল মোবাইল ফোন বন্ধ করে ফেলে।

এদিকে খালি অক্সিজেন সিলিন্ডার নিতে তিনটি ট্রাক এলে হাসপাতালের কর্মচারীরা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ট্রাকসহ তিন চালক ও তাদের সহযোগী তিনজনকে থানায় নিয়ে যায়। পরে ওই দিন রাতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি মামলা করে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার উজ্জ্বল কুমার, সহকারী কমিশনার ফারুক আহমেদ, আলতাফ হোসেন ও কোতোয়ালি থানার ওসি আব্দুর রশিদ।