টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় দেওলাবাড়ি ইউনিয়নের হারাবাড়ি গ্রামের তিনটি পরিবার ‘মাদকাসক্ত’ ছেলে ও স্বামীর ‘নির্যাতন’ থেকে বাঁচতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন জানিয়েছেন।

রোববার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে এসে তারা এ আবেদন জানান।

পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, ‘মাদকাসক্তি’র জন্য একাধিকবার জেল খেটেও সংশোধন হননি তারা। উল্টো বেড়েছে নির্যাতন।

ইউএনও কার্যালয়ে কথা হয় তিন পরিবারের সঙ্গে। 

‘মাদকাসক্ত’ হুমায়ুনের (৩০) বিধবা মা লাইলী বেগম (৬৫) সমকালকে বলেন, ‘সারাদিন ভিক্ষা কইরা আইনা যে কয়ডা টেহা, চাইল পাই সন্ধ্যাবেলা পোলা আইয়া সব নিয়া যায়। কিয়ের বড়ি জানি খায়। চাইল আর টেহা না দিলে ধইরা মারে। নির্যাতন আর সহ্য হয়না, পোলায় আমারে মাইরা ফালাইবো আমারে বাঁচান।’ 

‘মাদকাসক্ত’ কবিরের (৪০) বাবা জিন্নত আলী (৬২) বলেন, ‘নেশা করার টাকা দিতে না পারলেই ছেলে মারে আমারে।’

ঘাটাইল সদরে বাসাবাড়িতে বুয়ার কাজ করে মনিরা (২৫) যা পান, তার প্রায় সবটুকুই ‘কেড়ে নেন’ রিপন। রিকশা চালিয়ে সারা দিন তিনি যা আয় করেন, তার পুরোটাই ব্যয় করেন মাদকে।

মনিরা বলেন, ‘দুইডা বাচ্চা লইয়া কী যে বিপদে আছি। তারে বুঝাইলেও শুনে না। মারে আমারে।’ 

তিন পরিবারের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ফারজানা ইয়াসমিন বলেন, ‘আবেদন পেয়েছি, তদন্ত করে মাদকাসক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে থানা অফিসার ইনচার্জকে বলা হয়েছে।’

ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজহারুল ইসলাম সরকার বলেন, ‘ওই বিষয়ে আমি অবগত হয়েছি, মাদকাসক্তদের বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’