সিলেট বিভাগে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক অবস্থায় রয়েছে। প্রতিদিন করোনা শনাক্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড সৃষ্টি হচ্ছে। এতে করে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে রোগীর চাপ বাড়ছে। অনেক্ষেত্রে অক্সিজেন স্বল্পতায় বেসরকারি হাসপাতালে রোগী ভর্তিও সম্ভব হচ্ছে না। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সাড়ে ৪০০ শয্যার আরেকটি করোনা ইউনিট চালুর প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। আনুসাঙ্গিক সকল ব্যবস্থা হলেও সেন্ট্রাল অক্সিজেন সুবিধা না থাকায় এই ইউনিট চালু করা যাচ্ছে না। এ অবস্থায় ওসমানী হাসপাতালে অক্সিজেনের ব্যবস্থা করতে বুধবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেককে আধাসরকারি চিঠি (ডিও) দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। সিলেট-১ (সদর-নগর) আসনের এমপি ড. মোমেন বিষয়টি নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথাও বলেন।

ওসমানী হাসপাতালে বর্তমানে তিন শতাধিক সাধারণ শয্যার পাশাপাশি ১৮টি আইসিইউ শয্যার করোনা ইউনিট চালু রয়েছে। এছাড়া নগরীর শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে ১৬টি আইসিইউসহ ৯৬ শয্যার কোভিড ডেডিকেটেড সরকারি হাসপাতালে করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসা দেওয়া হয়। তবে সাম্প্রতিক সময়ে দুটি হাসপাতালে রোগীর চাপ সামলানো কঠিন হয়ে পড়েছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ওসমানী হাসপাতালের ১০ তলাবিশিষ্ট নতুন ভবনের ৪র্থ ও ৫ম তলায় সাড়ে ৪০০ শয্যার আইসোলেশন ইউনিট চালুর প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে ইউনিটের জন্য শয্যাসহ আনুসাঙ্গিক অন্যান্য ব্যবস্থা সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু সেন্ট্রাল অক্সিজেন ব্যবস্থা না থাকায় করোনায় আক্রান্তদের ভর্তি করা যাচ্ছে না। মাত্র ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ পেলেও এই সমস্যার সমাধান সম্ভব বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বরাবরে দেওয়া ডিও লেটারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন জানান, সারাদেশের মতো অতিসম্প্রতি সিলেটেও করোনা মহামারি প্রকট আকার ধারণ করেছে। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগ ভবন ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণের মাধ্যমে ৩য় তলা থেকে ১০ তলায় উন্নীত করা হয়েছে। কিন্তু ভবনটিতে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন সংযোজন করা হয়নি। 

এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী চিঠিতে লিখেছেন, ভবনটির ৪র্থ ও ৫ম তলা করোনা আইসোলেশন সেন্টারের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। দুইতলায় সাড়ে ৪০০ শয্যা প্রস্তুত করা হয়েছে। সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন সংযোজন না থাকায় আইসোলেশন সেন্টার চালু করা যাচ্ছে না। এজন্য মহামারিকালে সিলেটের মানুষের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিতে ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এদিকে ওসমানী হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেনের সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়ায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন। বৃহস্পতিবার ডিও লেটারের একটি ছবি যুক্ত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের আইডিতে স্ট্যাটাস দেন আওয়ামী লীগ নেতা জাকির।