পাবনার সাঁথিয়ায় দুপক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। এসময় বেশ কয়েকটি বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। বৃহস্পতিবার উপজেলার করমজা ইউনিয়নের আফড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার আফড়া গ্রামের কাজীলাল ও আনছার পক্ষের মধ্যে বাইচের নৌকা নিয়ে দীর্ঘদিনের বিরোধ চলছিল। তাছের ফকিরের ছেলে কাওছার (৩০) আনছারের নৌকায় উঠলে বুধবার রাতে কাজীলালের লোকজন ও করমজা ইউনিয়ন আওয়ামী ছাত্রলীগ সভাপতি আরিফুল ইসলামসহ কয়েকজন মিলে কাওছারকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। এ ঘটনার জেরে বৃহস্পতিবার আবার সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে তারা। এসময় তারা দেশি অস্ত্র, লাঠিশোটা ও ইট ব্যবহার করে। এতে উভয় পক্ষের ২০ জন আহত হয়।

আনছার পক্ষের আহতরা হলো- কাওছার(৩৫), হাসনা খাতুন (৫০), রফিকুল ইসলাম (৪০) ,মন্জু (২৫), রাজাই (৪০), ওয়াসিম (২৫), হাইস (২৬), জসিম (২৩), হযরত (৫০), জাহাঙ্গীর (৩০)।

কাজীলাল পক্ষের আহতরা হলো-  জেলা ছাত্রলীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক ও করমজা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম (২৮), লালচাঁদ (৩২), আনার (৩৭), শরীফ (২৫), আলামিন (৪০), আলজব (৩৭), রেজাউল (৪৩), আব্দুৃল (৪৫), গফুর (৭০) রত্না খাতুন (২৫), আশরাফুল (৪০), রোস্তম খা (৬০)।

আফড়া গ্রামের কৃষক সিরাজুল ইসলাম জানান, আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে তারা ঘরের বেড়া ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ভাংচুর করেছে। ঘরের ভেতরে প্রবেশ করে ফ্রিজ ও বাক্স ভেঙে ৯০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে গেছে তারা।

সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে এখন। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।