একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কাজী মুকুল বলেছেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে সংবিধান এবং এর চার মূলনীতি তৈরি হয়েছে। আমরা মিটিং-মিছিল, আন্দোলন-সংগ্রাম অনেক কিছুই করি। তবে মুক্তিযুদ্ধের পর বঙ্গবন্ধু প্রবর্তিত সংবিধানের দর্শনকে কতটুকু উপলব্ধি করি? বাংলাদেশকে সোনার বাংলা হিসেবে, মানবিক দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চাইলে আমাদের '৭২-এর সেই সংবিধানে ফিরে যেতে হবে এবং তরুণদের কাছে মুক্তিযুদ্ধ এবং ধর্মনিরপেক্ষতার আদর্শ পৌঁছে দিতে হবে।

বৃহস্পতিবার একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি বায়েজিদ থানা চট্টগ্রাম শাখা আয়োজিত 'বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন' শীর্ষক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ওয়েবিনারে প্রধান আলোচক সংগঠনের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক শওকত বাঙালি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকীর এই সময়ে বিভিন্ন কারণে শহীদজননী জাহানারা ইমামের আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা আরও বেড়েছে। মৌলবাদী ও সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস নির্মূলের নির্দেশ রয়েছে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শনে।

নির্মূল কমিটি বায়েজিদ থানা চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি অধ্যাপক ড. মোজাহেরুল আলমের সভাপতিত্বে ও জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু সাদাত মো. সায়েমের সঞ্চালনায় ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক গবেষক আলী আকবর টাবী। আলোচনায় অংশ নেন সংগঠনের চট্টগ্রাম জেলা সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দীন, কার্যকরী সাধারণ সম্পাদক অলিদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল আলম খান, সহসাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. সাহাব উদ্দিন, সাইফুদ্দিন শান্ত, মোহাম্মদ হাসান, আকতার হোসেন, শামীম আরা খানম, কাজী মুহাম্মদ রোকনুজ্জমান, এসএম ইমরান হোসেন, আকবর আলী সুমন প্রমুখ।