মোংলা বন্দরে অবস্থানরত সংযুক্ত আরব আমিরাতের পতাকাবাহী এম ভি ফাজা-১ জাহাজে গত এক সপ্তাহ ধরে ধারাবাহিকভাবে দস্যুতা সংঘঠিত হয়েছে। জাহাজটির স্থানীয় এজেন্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেলেও পুলিশ বলছে, ওই জাহাজে চুরি বা দস্যুতার বিষয়ে কেউ থানায় অভিযোগ দেয়নি।

জাহাজটির স্থানীয় এজেন্ট শুন শাইন শিপিং বাংলাদেশ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৮ জুলাই এম ভি ফাজা-১ মেশিনারী মালামাল নিয়ে বন্দরের পশুর নদীর ৮ নম্বর হাড়বাড়ীয়ায় নোঙর করে অবস্থান নেয়। এ সময় জাহাজে থাকা ফিলিপাইন ও ভারতীয় ৮ জন নাবিকের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। এরপর তাৎক্ষণিকভাবে জাহাজের স্থানীয় শিপিং এজেন্ট শুন শাইন শিপিং বাংলাদেশ ও পোর্ট হেলথ বিভাগ জাহাজে থাকা সকল এ দেশের শ্রমিক-কর্মচারীদের জাহাজ থেকে নামিয়ে আনে এবং জাহাজের ডেক সাইটের ৮ জন বিদেশি নাবিককে চিকিৎসার জন্য খুলনায় পাঠায়। জাহাজটিতে রাশিয়ান, ইউক্রেন, ফিলিপাইন ও ভারতীয় নাবিকদের করোনার উপসর্গ দেখা দেওয়ায় ১৫ দিনের জন্য জাহাজের নাবিকদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। অন্য আটজন নাবিক উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনার গাজী মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

অপরদিকে জহাজের ডেকে নাবিক সল্পতা ও ওয়াচম্যান না থাকায় মোংলার কানাই নগরের বাইদ্যাপাড়া কেন্দ্রিক একটি দস্যু দল জাহাজে লুটপাট শুরু করে। কয়েক দফায় করা লুটপাটে দস্যুরা জাহাজের ডেক সাইডের স্টোরের তালা ভেঙে মূল্যবান যন্ত্রাংশ, লৌহজাত দ্রব্য, রং ও মবিল ভর্তি ড্রাম নামিয়ে নেয়। সেসব মালামাল দস্যুরা মোংলা বন্দরের পশুর নদীর পাড়ে বিভিন্ন বাড়িতে লুকিয়ে রাখে।

এদিকে মোংলা থানা পুলিশ শুক্রবার সন্ধ্যায় মোংলার চিলা ইউনিয়নের তেলীখালী গ্রামের চায়না হারবারের জেটি সংলগ্ন একটি বাড়ি থেকে পরিত্যেক্ত অবস্থায় কিছু রংয়ের ড্রাম উদ্ধার করে। ধারণা করা হচ্ছে, উদ্ধার করা রংয়ের ড্রামগুলো ফাজা-১ নামক জাহাজ থেকে দস্যুতার মাধ্যমে আনা।

এর কিছুদিন আগেও একটি চায়না টাকবোট থেকে মালামাল খোয়া যাওয়ার ঘটনা ঘটে। সে সময়ও পুলিশ চুরি হওয়া সেই মালামাল উদ্ধার করে চায়না নাবিকদের কাছে ফিরিয়ে দেয়।

মোংলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা মালামাল পুলিশের জব্দ তালিকায় নেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে এ ঘটনার তদন্ত চলছে। তিনি আরও বলেন, ফাজা-১ নামক জাহাজে থেকে চুরি বা দস্যুতার কোনো ঘটনায় কেউ থানায় অভিযোগ করেননি।