এক সপ্তাহের ব্যবধানে সিলেট বিভাগে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে করোনায় সর্বোচ্চ ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ৪ আগস্ট ২০ জনের মৃত্যু হয়েছিল; যা বিভাগে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড ছিল। গত সোম ও মঙ্গলবার টানা দু’দিন ১৭ জন করে মারা গিয়েছিল।

গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে এক হাজার ৯১৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৫৫৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ডের দিনে সিলেট বিভাগে করোনা শনাক্তের হার আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে শনাক্তের হার ২৯ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ। 

বুধবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হিমাংশু লাল রায় স্বাক্ষরিত কভিড-১৯ কোয়ারেন্টিন ও আইসোলেশনের দৈনিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানানো হয়। এই বিভাগে মঙ্গলবার করোনা শনাক্তের হার ছিল ২৮ দশমিক ৭২ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট জেলায় ১১ জন এবং এম. এ. জি. ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আটজন মারা গেছেন। এছাড়া হবিগঞ্জে দুইজন ও মৌলভীবাজারে একজন মারা গেছেন। সব মিলিয়ে বিভাগে ৮৪৪ জন করোনায় মারা গেলেন। এর মধ্যে সিলেটে সর্বোচ্চ ৬২০ জন মারা গেছেন। সুনামগঞ্জে ৫৯ জন, হবিগঞ্জে ৪২ জন ও মৌলভীবাজারে ৬৬ জন মারা গেছেন। ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাকি ৫৭ জন মারা যান। 

গত ২৪ ঘণ্টায় মৌলভীবাজারে শনাক্তের হার ৩২ দশমিক ৬৬ শতাংশ ও সিলেটে ৩১ দশমিক শূণ্য ৯ শতাংশ। এছাড়া হবিগঞ্জে শনাক্তের হার ২৪ দশমিক ৪ শতাংশ ও সুনামগঞ্জে ২১ দশমিক ৫৮ শতাংশ। 

এই সময়ে সিলেট জেলায় ২৭৬ জন, সুনামগঞ্জে ৬৩ জন, হবিগঞ্জে জেলায় ৬১ জন ও মৌলভীবাজারে ১১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৪৩ জন রোগীর শরীরে এদিন করোনা শনাক্ত হয়েছে। 

এদিকে শনাক্ত বাড়লেও ৭১৫ জন করোনা আক্রান্ত সুস্থ হয়েছেন। বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ওসমানী হাসপাতালের কভিড ইউনিটে ৩০৬ জন রোগী ভর্তি আছেন। এদের মধ্যে হাসপাতালের আইসিইউতে ১৩ জন ভর্তি আছেন। এছাড়া ১৭৯ জন করোনার উপসর্গ নিয়ে ও ১১৪ জন করোনা পজিটিভ রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বর্তমানে বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ৪৬৯ জন করোনা আক্রান্ত ভর্তি আছেন। নগরীর বিভিন্ন হাসপাতালে ৩২৪ জন, সুনামগঞ্জে ৬৭ জন, হবিগঞ্জে ৫০ ও মৌলভীবাজারে ২৮ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

এখন পর্যন্ত বিভাগে ৪৭ হাজার ১১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে; যার মধ্যে ৩৪ হাজার ৫৫২ জন সুস্থ হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৮২ জন করোনা আক্রান্তকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।