ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ. কে. আজাদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি শোষণহীন সমাজের স্বপ্ন দেখেছিলেন। তার জীবদ্দশায় সে স্বপ্নের বাস্তবায়ন করে যেতে না পারলেও তার কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সে লক্ষ্য পূরণে কাজ করে যাচ্ছেন।

রোববার দুপুরে ফরিদপুরে জেলা প্রশাসন আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ফরিদপুর কবি জসীম উদ্দীন হলে জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি ও সমকাল প্রকাশক এ. কে. আজাদ বলেন, দেশের মানুষের মৌলিক পাঁচটি অধিকার পুরণ করা ছিল জাতির পিতার প্রথম স্বপ্ন। কিন্তু ঘাতকের বুলেট কেড়ে নেয় তার সব স্বপ্ন। আজ ৪৬ বছর পর আমরা ঐক্যবন্ধ হয়ে তার সেই স্বপ্ন পূরণ করার অঙ্গীকার নিয়ে কাজ করছি।

ফরিদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুম রেজার সঞ্চালনায় সভায় বঙ্গবন্ধুর জীবনের ওপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক রেজভী জামান।

আলোচনা সভায় ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এ. কে. আজাদসহ অন্যান্যরা, ছবি: সমকাল

সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহা, সহ-সভাপতি শামীম হক, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শামসুল হক ভোলা মাস্টার, পুলিশ সুপার মো. আলীমুজ্জামান, পৌর মেয়র অমিতাভ বোস, সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ মোশাররফ আলী, ফরিদপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ঝর্ণা হাসান, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আক্কাস হোসেন, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আইভী মাসুদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান, আবুল ফয়েজ শাহনেওয়াজ ও নুর মোহাম্মদ ক্যাপ্টেন বাবুল, সাংবাদিক পান্নাবালা, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তামজিদুর রশীদ চৌধুরী রিয়ান প্রমুখ।

বক্তারা তাদের বক্তব্যে ‘শোক থেকে শক্তি, শোক থেকে জাগরণ’ প্রতিপাদ্য বিষয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করে জাগরণ থেকে জনগণের সমৃদ্ধি অর্জনের ওপর আলোকপাত করেন।  এসময় বক্তারা সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদ রুখে দিতে স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান। পরে মঞ্চে উপবিষ্ট আওয়ামী লীগের সব পক্ষের নেতৃবৃন্দ এতে ঐকমত্য পোষণ করেন।

সভা শেষে ফরিদপুর শহরের কয়েকটি স্থানে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দুস্থদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ অনুষ্ঠানে অংশ নেন আওয়ামী লীগ নেতা এ. কে. আজাদসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ।