চন্দ্রিমা উদ্যান থেকে জিয়াউর রহমানের সমাধি সরিয়ে নেওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে গাজীপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। 

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘চন্দ্রিমা উদ্যানের  মাজারে  জিয়াউর রহমানের লাশ নেই। তাকে ব্রাশফায়ার করে হত্যার পর মৃতদেহ পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। জিয়াউর রহমানের লাশ থাকলে ডিএনএ টেস্ট করে প্রমাণ করুক বিএনপি।’

বৃহস্পতিবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, চন্দ্রিমা উদ্যানে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবর নেই। তারপরও বিএনপি সেখানে গিয়ে বিশৃঙ্খলা করে। 

প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব  মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন,  আওয়ামী লীগ কতটা ‘প্রতিহিংসাপরায়ণ’ তা এই বক্তব্য থেকেই ‘প্রমাণিত’।

এই প্রসঙ্গ ধরেই আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, সংসদ ভবনের আশপাশ থেকে জিয়ার মাজারসহ সকল স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য স্পিকারের বরাবর আবেদন করা হয়েছে। আবেদন পর্যালোচনা করে সংসদ ভবন এলাকা সকল অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে সংসদ ভবনকে মূল নকশায় ফিরিয়ে আনার কাজ চলছে বলেও জানান তিনি। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন সবুজসহ দলীয় নেতাকর্মীরা।