টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিনকে হত্যার হুমকি দিয়ে চিঠি দিয়েছে 'জঙ্গি সংগঠন'। চিঠিতে তাকে হত্যা করতে ব্যর্থ হলে তার ঘনিষ্ট স্বজন আউট সোর্সিং হিসেবে প্রসেস সার্ভার পদে চাকরিরত এক ছেলেকে জবাই করে হত্যার হুমকিও দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে বিচারকদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। নিরাপত্তাহীতায় রয়েছেন বিচারক খালেদা ইয়াসমিনসহ তার পরিবারের লোকজন। শুক্রবার দুপুরে বিচারক খালেদা ইয়াসমিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

জানা যায়, বৃহস্পতিবার একটি খামে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিনের কাছে একটি চিঠি আসে। ওই চিঠিতে প্রেরকের স্থানে জুবায়ের রহমান নাম লেখা রয়েছে। 

চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন বলেন, চিঠিটি পাওয়ার পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। এ ছাড়া তিনি ও তার পরিবারের লোকজন বর্তমানে আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ‘আমি জঙ্গি সংগঠনের লোক। তাই জীবনে চলার পথে অনেক অন্যায় কাজ করেছি, এমনকি এখনো করি। আমরা যখন যাকে টার্গেট করি তখন তাকে ছলে বলে কৌশলে হত্যা করি। এটাই আমাদের পেশা। এবার আপনাকে হত্যা করার পালা। কারণ আপনি নারী ও শিশু কোর্টে আসার পর থেকে এখন পর্যন্ত অনেক বড় ধরনের মামলার রায় দিয়েছেন। তাতে আমাদের লোকজনের বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে। তাই আল্লাহ দোহাই দিয়ে বলছি যদি নিজের জীবনের প্রতি মায়া থাকে তাহলে টাঙ্গাইল থেকে বদলি হয়ে চলে যান। যদি কথা না  শুনেন আপনাকে হত্যা করতে বাধ্য হবো।' 

টাঙ্গাইল র‌্যাবের কমান্ডার কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, বিচারকের পক্ষ থেকে বিষয়টি আমদের জানানো হয়েছে। জঙ্গী সংগঠনের দেওয়া চিঠিটি আমরা পেয়েছি। র‌্যাব বিষয়টি নিয়ে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, বিচারক খালেদা ইয়াসমিন হত্যার হুমকির ঘটনাটি আমাদেরকে জানিয়েছেন। বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে। বিচারক ও তার পরিবারের লোকজনদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়া তার আসা যাওয়ার পথে এবং আদালতের নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।