বর শিক্ষার্থী, কনেও শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের শুরুতেই দু'জনের পরিচয়। এরপর প্রেম, তারপর পরিণয়। কিন্তু বরের ইচ্ছা প্রেয়সী নববধূকে হেলিকপ্টারে করে উড়িয়ে আনবেন। যেমন ইচ্ছা তেমন কাজ। শুক্রবার দুপুরে হেলিকপ্টারে করে নববধূকে নিতে আসেন বর রাসেল হাসান।

রাসেল সাভার হেমায়েতপুরের শিল্পপতি শাহাজাহান আলীর ছেলে। কনে তানজিনা পারভীন উলিপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের মেয়ে।

দারিদ্রপীড়িত এলাকা কুড়িগ্রাম। এই জেলার বেশির ভাগ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করেন। হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে এ এলাকায় বিরল। হেলিকপ্টারে করে মেয়ের বিয়ের এ খবর চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

উৎসুক মমেনা বেগম বলেন, ‘জীবনে মেলা বিয়ে দেখছি। হেলিকপ্টারত চড়ি বর আইসে প্রথম দেখলং। উলিপুরত মেলা বড়লোক আছে, কিন্তু কাইও হেলিকপ্টারত চরি বিয়ে করে নাই। এই বিয়ে প্রথম দেখলং হামরা।’

জানা গেছে, উলিপুর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম ৪ সন্তানের জনক। প্রথম মেয়ের বিয়ে দেন এলাকায়। দ্বিতীয় মেয়ে তানজিনা পারভীনের বিয়ের বর এলেন হেলিকপ্টারে করে।

কনের বাবা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, মেয়ে-জামাইয়ের আবদার পূরণ করতেই এ আয়োজন। এই প্রথম এই এলাকায় হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে হলো।