নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ রংমালা বাজারে মাদ্রাসা কমিটি গঠনের জেরে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি সমাবেশ করতে দেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কায় শনিবার রাতেই ১৪৪ ধারা জারি করা হয়। 

রোববার ভোর ৬টা থেকে অতিরিক্ত র‌্যাব-পুলিশ মোতায়েন ছিল কোম্পানীগঞ্জে। বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা ও তার ভাগ্নে উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশিদ মঞ্জু পাল্টাপাল্টি এ সমাবেশের ডাক দেন।

১৪৪ ধারা জারির ফলে রোববার সকাল থেকে মুছাপুর ইউনিয়নের রংমালা বাজার এলাকায় অনেকটা অঘোষিত হরতাল চলেছে। ফলে আব্দুল কাদের মির্জা কিংবা তার প্রতিপক্ষ মাহবুবুর রশিদ মঞ্জু তাদের পূর্বনির্ধারিত সভা-সমাবেশ করতে পারেননি। সকাল থেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ছামিউল ইসলামের উপস্থিতিতে বিপুলসংখ্যক পুলিশ রংমালা বাজার এলাকায় টহল দিয়েছে। সেখানকার অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ ছিল। সাধারণ লোকজনের উপস্থিতিও কমে গিয়েছিল রাস্তায়। উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতেও পুলিশ মোতায়েন ছিল।

গত শুক্রবার বিকেলে বসুরহাট পৌরসভার হলরুমে গতকাল সকাল ১০টায় রংমালা বাজারে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছিলেন বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা। অন্যদিকে রাত সাড়ে ৯টায় তার ভাগ্নে উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশিদ মঞ্জু ফেসবুক লাইভে এসে একই স্থানে প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দেন। আইনশৃঙ্খলার অবনতি ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ এড়াতে রোববার ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করে স্থানীয় প্রশাসন।