মানিকগঞ্জের শিবালয়ের কলেজছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মনোরঞ্জন শীল নকুল (৫০) নামে এক আওয়ামী লীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ওই শিক্ষার্থীর করা মামলায় শুক্রবার বিকেলে নকুলের নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অভিযুক্ত নকুল উপজেলার নতুন পাড়ার মৃত মঙ্গল শীলের ছেলে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। এসব তথ্য নিশ্চিত করেন শিবালয় সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানিয়া সুলতানা।

পুলিশ জানায়, অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা নকুল শীল মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়ে হাতে আঘাত পান। হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফেরত আসেন। ওই কলেজ ছাত্রী টাকার বিনিময়ে সেই নেতার হাত ম্যাসাজ করে দিতেন। প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার দুপুরে হাত মেসেজ করে দিতে যান। এ সময় নকুল মেয়েটির শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন এবং ধর্ষণের চেষ্টা করেন। পরে কলেজছাত্রীর চিৎকারে নেতার স্ত্রী এগিয়ে আসলে তাকে ছেড়ে দেন নকুল।

কলেজছাত্রীর মা বলেন, নকুল পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে কাউকে কিছু বলতে নিষেধ করেন এবং বিভিন্ন ধরনের হুমকি দেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানিয়া সুলতানা বলেন, ‘ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে ঘটনার সত্যতা মিলেছে। আসামিকে এরই মধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

এ ঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত নন। ঘটনার প্রমাণ হলে দলীয় ফোরামে আলোচনা করে নকুলের বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।