দশমিনা উপজেলায় একটি মাদ্রাসায় শ্রেণিকক্ষ প্রস্তুত না হওয়ায় পাঠ গ্রহণ করতে পারেনি শতাধিক শিক্ষার্থী। পরে হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে তারা। রোববার উপজেলার আদপুর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় এ ঘটনা ঘটে।

মাদ্রাসার দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী জানায়, অনেকক্ষণ আগে ক্লাস করার জন্য মাদ্রাসায় এসেছে তারা; কিন্তু কোন কক্ষে তারা ক্লাস করবে তা তারা জানে না। মাদ্রাসার পূর্ব পাশের টিনশেড ভবন এবং দক্ষিণ পাশের টিনশেড ভবন তালাবদ্ধ ছিল।

অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী জানায়, জানালা দিয়ে সে দেখেছে আবর্জনার স্তূপ জমে আছে তাদের শ্রেণি কক্ষগুলোতে। কোথায় বসে ক্লাস করবে, তা তারা জানে না। স্যাররাও কিছু বলছেন না। এভাবে প্রায় দুই ঘণ্টা মাঠে ঘোরাঘুরির পর শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারে কোনো নির্দেশনা না দিয়েই তাদের জানানো হয়, আজ (রোববার) ক্লাস হবে না।

এ বিষয়ে মাদ্রাসার সুপার মাওলানা মো. নেছার উদ্দিন বলেন, 'টিনশেড ভবনগুলো জরাজীর্ণ। তাই পরিস্কার করা হয়নি। আজকে প্রস্তুতি নিয়েছি আগামীকাল (সোমবার) থেকে ক্লাস শুরু করা হবে।'

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. সেলিম মিয়া বলেন, মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ আমাকে জানিয়েছিল ক্লাস করার জন্য সবকিছু প্রস্তুত রয়েছে। তবে এ বিষয়টি খোঁজ নিয়ে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল আজীজ মিয়া বলেন, ক্লাস না হওয়ার বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত। তবে ওই মাদ্রাসায় ভবন সংকট রয়েছে। এ ছাড়া পরিত্যক্ত টিনশেড ভবনে ক্লাস করা সম্ভব নয়। তিনি আরও বলেন, মাদ্রাসায় চারতলা ভবনের নির্মাণকাজ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ফেলে রাখায় শ্রেণিকক্ষের সংকট রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আল আমিন বলেন, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।