জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে কুলখানির দাওয়াতে গিয়ে পোলাও খেয়ে আশেপাশের তিন গ্রামের প্রায় অর্ধশতাধিক মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েছে। অসুস্থ অবস্থায় ৪১ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন স্থানীয়রা। এদিকে হঠাৎ করে রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকরা। 

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার বেলখুর গ্রামে কিছুদিন পূর্বে বজলুর রহমান নামে এক ব্যক্তি মারা যান। তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শুক্রবার দুপুরে গ্রামের মসজিদে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে অংশ নেন আশপাশের বাকিলা, পানিখুর ও বেলখুর গ্রামের লোকজন। পরে সেখানে আমন্ত্রিত অতিথিদের মিলাদ শেষে পোলাও খাওয়ানো হয়। আর এই পোলাও খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন অর্ধশতাধিক নারী-পুরুষ ও শিশু।

বেলখুর গ্রামের মল্লিক হোসেন বলেন, স্থানীয় মসজিদে দোয়া মাহফিল শেষে সবাইকে পোলাও খাবার দেওয়া হয়। ওইদিন রাত থেকেই শতাধিক মানুষের ডায়রিয়া ও পেট ব্যাথা শুরু হয়।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মরিয়ম বেগম জানান, মিলাদের পোলাও খেয়ে তার পরিবারের সবাই ডায়রিয়াতে ভুগছেন। প্রথমে তারা বাড়িতে চিকিৎসা নিয়েছেন। এরপর অবস্থা খারাপ হলে তারা হাসপাতালে ভর্তি হন। 

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরেক রোগী শাপলা বেগম বলেন, পোলাও খাবার পর থেকে বমিবমি ভাব হচ্ছিল। এরপর পাতলা পায়খানা শুরু হয়, আর সাথে পেট ব্যাথাও। তাই বাধ্য হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি।   

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সোলায়মান মেহেদী জানান, শনিবার রাত থেকে রোববার বিকেল পর্যন্ত দাওয়াতে গিয়ে পোলাও খাবার খেয়ে ৪১ জন রোগী বমি, পাতলা পায়খানা ও পেট ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসকদের। বেড না থাকায় হাসপাতালের মেঝেতেও অনেককে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে।