চট্টগ্রামে অস্ত্রবাজির ঘটনায় যুবলীগ নামধারী মহিউদ্দিন জনি ও তার একসহযোগীকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। শুক্রবার রাতে মিরসরাই এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার মহিউদ্দিন জনি নগরের বাকলিয়া থানার রাজাখালী মাহফুজা কলোনীর মো. জসিম উদ্দিনের ছেলে ও তার সহযোগী শেখ মোহাম্মদ শাকিল পাহাড়তলী থানার দক্ষিণ কাট্টলী শেখ মোহাম্মদ ইউসুফের ছেলে।

তাদের কাছ থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, একটি ম্যাগজিন ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। মহিউদ্দিন জনির বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও অস্ত্রবাজির একাধিক অভিযোগ রয়েছে। এর আগেও ছাত্রলীগের এক নেতাকে গুলি করে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন তিনি। র‌্যাবের সিনিয়র সহকারি পরিচালক (মিডিয়া) নূরুল আবছার এ তথ্য জানান। 

তিনি বলেন, মহিউদ্দিন জনির প্রকাশ্য অস্ত্র উঁচিয়ে শোডাউনের ছবি ও ভিডিও দৃষ্টিগোচর হলে তাকে গ্রেপ্তারে অভিযানে নামে র‌্যাব। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মিরসরাই এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। অবৈধ অস্ত্র ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরণের সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে আসছে তারা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় অস্ত্র কেনা বেচার কথা স্বীকার করেছে তারা।

তিনি আরও জানান, ২০১৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি রাতে নগরের বাকলিয়া হাজী আমিনুর রহমান রোডে ছাত্রলীগ নেতা তানজিরুল হক চৌধুরীর পায়ে গুলি করে মহিউদ্দিন জনি। এ ঘটনায় তিন সহযোগীসহ তাকে গ্রেপ্তার করেছিল বাকলিয়া থানা পুলিশ। পরে জামিনে বেরিয়ে এসে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠে জনি। ২০১৯ সালের ২৯ আগস্ট চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে ক্লাবে তাঁতী লীগের একটি অনুষ্ঠানে প্রতিপক্ষকে প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে ভয়ভীতি দেখায় জনি।

গত ২৭ জুন চাক্তাই রাজাখালী বিশ্বরোড এলাকায় চাঁদাবাজির জের ধরে অস্ত্র হাতে প্রতিপক্ষের লোকজনকে শাসানোর ভিডিও ফুটেজ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এর আগে ২৭ জানুয়ারি সিটি নির্বাচনের দিন অস্ত্র হাতে প্রতিপক্ষকে তাড়া করতে দেখা যায় তাকে।