রাজধানীর মিরপুরের চিড়িয়াখানা এলাকা থেকে একটি পুরোনো মর্টার শেল উদ্ধার করেছে র‌্যাবের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল। 

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ভবন নির্মাণের উদ্দেশ্যে খোঁড়াখুঁড়ির সময় আড়াই ফুট মাটির নিচে শেলটি পাওয়া যায়। পরে বুধবার তা নিরাপদ স্থানে নিয়ে নিষ্ক্রিয় করা হয়।

র‌্যাব সূত্র জানায়, চিড়িয়াখানা সড়কের কমিউনিটি সেন্টারের পাশে একটি ভবন নির্মাণের জন্য মাটি খোঁড়া হচ্ছিল। একপর্যায়ে শ্রমিকরা মর্টার শেলটি দেখতে পেয়ে বাড়ির মালিককে জানান। খবর পেয়ে র‌্যাবের বোমা উদ্ধারকারী দলের সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। উদ্ধারের পর জানা যায়, এটি অনেক বছরের পুরোনো। তবে সক্রিয় অবস্থাতেই ছিল। এর বিস্ফোরণ ঘটলে মারাত্মক ক্ষতির শঙ্কা ছিল।

পরে দুপুরে ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন র‌্যাবের বোমা উদ্ধার ও নিষ্ক্রিয়করণ ইউনিটের কর্মকর্তা মেজর মশিউর রহমান। তিনি বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে চিড়িয়াখানা সড়কে একটি ভবন নির্মাণের জন্য খনন করার সময় মর্টার শেলটি পাওয়া যায়। র‌্যাব-৪ সদস্যরা খবর পেয়ে বিষয়টি সদর দপ্তরের বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দলকে জানান। আমরা এসে ৬০ মিলিমিটারের শেলটি উদ্ধার করি। এর গায়ে মরিচা ধরে থাকায় কোথায় তৈরি, তা বলা যাচ্ছে না। আশপাশে আরও কোনো মর্টার বা এ জাতীয় কিছু আছে কিনা, তা আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে তল্লাশি করে দেখা হয়েছে। তেমন কিছু পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও বলেন, শেলের দুটি উৎস হতে পারে। এটি মুক্তিযুদ্ধের সময়কার অথবা পরে কেউ মাটির নিচে পুঁতে রাখতে পারে। এর ভেতরে বিস্ফোরক ছিল। হয়তো দূর থেকে এটি ফায়ার করা হয়, তা এখানে এসে পড়ে। নাড়াচাড়া করলে অথবা বাইরে থেকে বলপ্রয়োগ করলে শেলটি বিস্ফোরিত হতে পারে।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, এটি বিস্ফোরিত হলে চারপাশে ৩৫ মিটার পর্যন্ত এলাকায় থাকা মানুষ স্পিলন্টারের আঘাতে আহত হতে পারতেন।