কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুউল্লাহ হত্যাকাণ্ডকে অনাকাঙ্ক্ষিত উল্লেখ করে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, এ ঘটনার বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি টিম কাজ করছে। শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টায় কক্সবাজার পৌঁছেন পররাষ্ট্র সচিবের নেতৃত্বে চার সদস্যদের একটি প্রতিনিধি দল যার নেতৃত্বে রয়েছেন পররাষ্ট্র সচিব। রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার পর উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পের পরিস্থিতি দেখতে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনসহ কক্সবাজারে যান প্রতিনিধি দলটি।

সেখানে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘মাঠ পর্যায়ের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে আমরা এখানে এসেছি। এ ঘটনার বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি টিম কাজ করছে।’ পররাষ্ট্র সচিবের নেতৃত্বে প্রতিনিধিরা রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে নিহত মুহিবুল্লাহর পরিবারের সঙ্গেও দেখা করবেন।

জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, হিউম্যান রাইটস ওয়াচের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর হত্যাকারীদের দ্রুত বিচার দাবি করা হয়েছে। মুহিবুল্লাহ হত্যায় জড়িত সন্দেহে ৫ জনকে আটক ও জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পাশাপাশি ক্যাম্পের সার্বিক নিরাপত্তাও জোরদার করা হয়েছে।  

এদিকে ভাসানচরে বসবাসকারী রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করতে আগ্রহ দেখিয়েছে জাতিসংঘ। তারই প্রেক্ষিতে ইউএনএইচসিআর ও সরকারের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষর হওয়ার কথা রয়েছে শনিবার। 

প্রসঙ্গত, গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে উখিয়ায় লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৪৮ বছর বয়সী মুহিবুল্লাহকে গুলি করে হত্যা করে একদল অস্ত্রধারী। তিনি ছিলেন ‘আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস’ নামে রোহিঙ্গাদের একটি সংগঠনের চেয়ারম্যান। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংডুর এলাকার স্কুলশিক্ষক মুহিবুল্লাহ পশ্চিমা সংবাদ মাধ্যমে ‘রোহিঙ্গাদের কণ্ঠস্বর’ হিসেবে বিবেচিত ছিলেন।