বন্দরের কদমরসুল কলেজ মাঠপাড়া এলাকায় ছেলের ছুরিকাঘাতে আহত হয়ে বাবা বিল্লাল হোসেন ১৩ দিন হাসপাতালে ছিলেন। পরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ ঘটনায় শুক্রবার দুপুরে ছেলে বাপ্পিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। 

স্থানীয়রা জানান, বাপ্পির মা মারা গেলে বিল্লাল দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এতে বাবার প্রতি ছেলের ক্ষোভ ছিলো। তাই ২৪ সেপ্টেম্বর বাবাকে ছুরিকাঘাত করে বাপ্পি। এসময় তার সৎ মাকেও ছুরিকাঘাত করে বলে জানা যায়। পরে স্থানীয়রা বিল্লাল হোসেনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ১৩ দিন হাসপাতলে চিকিৎসাধীন থাকার পর বৃহস্পতিবার মারা যায় বিল্লাল হোসেন। 

 এ ঘটনায় নিহত বিল্লালের ভাই বাদী হয়ে বন্দর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। 

এদিকে বাবার মৃত্যুর খবর পেয়ে তাকে দেখতে এলে বাপ্পির পরিবারের লোকজন তাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। 

এ বিষয়ে বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, পারিবারিক কারণে ছেলের হাতে বাবা খুন হয়েছে। এ ঘটনায় বাপ্পিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।