শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-জনতা ঐক্যের শ্রমিক সমাবেশে বক্তারা বলেছেন, পাটকল বন্ধের কারণে শিল্পসমৃদ্ধ খুলনার খালিশপুর এখন মৃতপ্রায়। হাজার হাজার শ্রমিক কাজ হারিয়ে বেকার হয়ে পড়েছেন। বকেয়া টাকা না পেয়ে পরিবারগুলো খেয়ে-না খেয়ে দিন কাটাচ্ছে। এ জন্য অবিলম্বে বন্ধ ঘোষিত সব পাটকল পুনরায় চালু এবং শ্রমিকদের সব ধরনের বকেয়া পাওনা পরিশোধ করতে হবে।

 শুক্রবার বিকেল ৪টায় নগরীর খালিশপুর পিপলস গোল চত্বরে চার দফা দাবিতে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। দাবিগুলো হলো- শ্রমিকদের বকেয়া পাওনা অবিলম্বে পরিশোধ, বন্ধ সব পাট ও চিনিকল রাষ্ট্রীয় উদ্যোগে পুনরায় চালু, সরকার ঘোষিত বেতন স্কেল অনুযায়ী দেশের সব বেসরকারি পাটকল শ্রমিকদের বেতন নির্ধারণ ও বাস্তবায়ন এবং ব্রেকিং সিস্টেম আধুনিকায়ন করে ইঞ্জিন-ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান চলাচলের লাইসেন্স দেওয়া।

শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-জনতা ঐক্যের সমন্বয়ক রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে সমাবেশ সঞ্চালনা করেন খালিশপুর জুটমিল কারখানা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলমগীর কবির।

বক্তব্য দেন লেখক ও গবেষক মাহা মির্জা, শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-জনতা ঐক্য চট্টগ্রাম শাখার সদস্য সচিব কামাল উদ্দিন, আমিন জুটমিলের শ্রমিক নেতা আবু হানিফ, গার্মেন্ট শ্রমিক নেতা আরমান হোসাইন, শ্যামপুর চিনিকল রক্ষা আন্দোলন কমিটির সদস্য আহমেদ বাবু, খালিশপুর জুটমিল সিবিএ সাংগঠনিক সম্পাদক ও খালিশপুর জুটমিল কারখানা কমিটির সভাপতি মনির হোসেন, স্টার জুটমিলের শ্রমিক নেতা আলমগীর হোসেন, খালিশপুর জুটমিল শ্রমিক শফিউদ্দিন প্রমুখ।

সমাবেশে পাটকল আন্দোলনের কর্মী মিহির কান্তি মণ্ডলের তোলা 'পাটকল আন্দোলনের স্থিরচিত্র' প্রদর্শিত হয়। সমাবেশ শেষে নাট্যদল মাতঙ্গীর উদ্যোগে মঞ্চস্থ হয় নাটক 'দুনিয়ার মজদুর এক হও'।