মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলায় গণপিটুনিতে এক ডাকাত নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরেকজন। সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার বকচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আতোয়ার রহমান (৩৫) মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার বিনোদপুর গ্রামের সুলতান হোসেনের ছেলে। আর আহত ডাকাত মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার মিতরা গ্রামের লিটন শেখ (৩৫)। তাকে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় লোকজন।

এদিকে ডাকাত দলের হামলায় আহত হয়েছেন ওই গ্রামের এক বাড়ির আরও তিনজন। তাদের মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গ্রাম পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে পাঁচ থেকে ছয়জনের একদল ডাকাত বকচর গ্রামের অটল চক্রবর্তীর বাড়িতে হানা দেয়। এ সময় ডাকাত দল অটল চক্রবর্তী, তার স্ত্রী শিপ্রা রানি চক্রবর্তী ও মা গীতা রানি চক্রবর্তীর হাত-পা বেঁধে মারধর শুরু করেন।

স্বর্ণালঙ্কার ও মালামাল লুট করে নিয়ে যাওয়ার সময় চিৎকার শুনে এগিয়ে আসে প্রতিবেশী স্থানীয় লোকজন। এসময় তারা দুই ডাকাতকে আটক করে ফেলে।

স্থানীয় মহাদেবপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য ইয়াকুব আলী মোল্লা বলেন, গ্রামবাসী দুই ডাকাতকে আটক করে গণপিটুনি দেওয়া শুরু করে। এতে আতোয়ার ঘটনাস্থলেই মারা যান। খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে পুলিশ ওই গ্রাম থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে। এছাড়া আটক অপর ডাকাত লিটনকে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে যায়।

তবে শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ কবির বলেন, এটা ডাকাতির ঘটনা নয়, চুরি করতে গিয়েছিলেন তিনজন। এলাকাবাসীর গণপিটুনিতে একজন মারা গেছেন। ঘটনাস্থল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।