দুই বছর আগে চট্টগ্রাম আদালতে একটি মামলার নথি থেকে দেড় কোটি টাকার চেক চুরির ঘটনায় আইনজীবীর সহকারীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে বুধবার মামলা হয়েছে। চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালতের নাজির মোহাম্মদ ইসমাইল বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলাটি করেন। আদালতের এজলাস কক্ষ থেকে নথি চুরির ঘটনা যাতে পুনরাবৃত্তি না হয়, সে জন্য অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলায় অভিযুক্তরা হলেন- চট্টগ্রাম অ্যাডভোকেট ক্লার্ক অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য এনামুল হক (৪২), চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার জিকু দাশ (৩০) এবং দিনাজপুর জেলার বাসিন্দা ইদ্রিস আলী (৫৬)। ইদ্রিস আলী চুরি যাওয়া চেকটির এনআই অ্যাক্টে দায়ের হওয়া মামলার (৪৩২৪/২০১৮) আসামি। বাকি দু'জনের মধ্যে এনামুল হক একই মামলার আইনজীবী সাইদুল ইসলাম স্বপনের ছোট ভাই ও আইনজীবীর সহকারী। জিকু দাশ চট্টগ্রাম আদালতে দীর্ঘ সময় ধরে দালালের কাজ করে আসছেন।

আদালতের নাজির মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, একটি মামলার নথি থেকে দেড় কোটি টাকার চেক চুরির ঘটনায় এরই মধ্যে পঞ্চম মহানগর আদালতের বেঞ্চ সহকারী এসএম মাসুদ হাসানের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়েছে। এ ছাড়া অফিস সহায়ক তপন কান্তি দের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। বিভাগীয় তদন্ত শেষে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে, তাদের আসামি করে মামলাটি করা হয়েছে। এ কারণে মামলাটি দায়ের করতে সময় লেগেছে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ২০১৯ সালের ৮ জুলাই যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ পঞ্চম আদালতের এজলাস কক্ষ থেকে একটি দায়রা মামলার এক কোটি ৪০ লাখ টাকার নথি চুরি হয়। পরে সাবিত্রী বণিক নামে এক নারী মোহাম্মদ ইদ্রিস আলীকে আসামি করে মামলা করেন। চেক চুরির ঘটনায় সাবিত্রী বণিক অভিযোগ করেন, মোহাম্মদ ইদ্রিস আলীর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতায় বাকি অভিযুক্তরা নথি চুরির সঙ্গে সরাসরি জড়িত।