সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়কের বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজী এমএ খান সেতুতে অবৈধভাবে টোল আদায় বন্ধের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করেছেন পরিবহন শ্রমিকরা। 

শনিবার সকাল ৯টা থেকে ১১টা এবং সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৫ ঘণ্টা লামাকাজি পয়েন্টে তারা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

অবরোধ কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেন সিলেটের উত্তর সুরমা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের সিলেট-সুনামগঞ্জ পরিবহন শ্রমিক কমিটির সভাপতি রনদ্বীপ দত্ত। খবর পেয়ে বিশ্বনাথ থানার ওসি গাজী আতাউর রহমান ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগামী দু'দিনের মধ্যে দাবি আদায়ের আশ্বাস দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ বিষয়ে রনদ্বীপ দত্ত সমকালকে বলেন, প্রায় ১০ বছর ধরে বিশ্বনাথের লামাকাজী, ওসমানীনগরের শেরপুর ও বিয়ানীবাজারের শেওলা সেতুতে অবৈধভাবে টোল আদায় করা হচ্ছে। বারবার অবৈধভাবে টোল আদায় বন্ধের দাবি জানালেও তা বন্ধ করা হচ্ছে না।

সড়ক অবরোধকালে বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ জেলা শ্রমিক কমিটির সভাপতি সেতু মিয়া, সুনামগঞ্জ উপকমিটির সভাপতি লায়েক মিয়া, সুনামগঞ্জ বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুকুল মিয়া, সিলেট মোটর মালিক গ্রুপের সভাপতি হাজী আব্দুল রহিম, মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি খলিলুর রহমান, মিনিবাস শ্রমিক কমিটির সভাপতি রুবেল মিয়া প্রমুখ।

লামাকাজী টোলের দায়িত্বে থাকা জাপা নেতা একেএম দুলাল সমকালকে বলেন, গত ১৪ অক্টোবর থেকে সরকারের কাছে নিলামের মাধ্যমে টোল আদায়ের দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। তার দাবি, পরিবহন শ্রমিকরা নিজেদের ব্যক্তিগত স্বার্থ আদায় করতে না পারায় এখন অবৈধভাবে সড়ক অবরোধ করছেন।