গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেছেন, মানুষের মর্যাদা কেড়ে নিয়েছে সরকার। যে দেশে নাগরিকদের ভোটের অধিকার নেই সে দেশে মানুষের কোনো মর্যাদা থাকতে পারে না। তিনি বলেন, গত ৫ বছর ধরে আমরা শুনছি আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়ন করছে। তারা রেল বানাচ্ছে, উড়াল সেতু বানাচ্ছে, পদ্মা সেতু বানাচ্ছে, পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বানাচ্ছে। কাজেই উন্নয়নের জন্য এখন আর মানুষের ভোটের গণতন্ত্র চলবে না। এখন তারা উন্নয়নের গণতন্ত্র নাম দিয়ে নতুন গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছে। কারণ বর্তমান সময়ে এসে তারা শুধু গণতন্ত্রের কথা বলতে পারছে না।

জোনায়েদ সাকি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, আগামী নির্বাচনে আপনারা মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিতে পারবেন না। এর চেষ্টা করলে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে মোকাবিলা করতে হবে।

গণসংহতি আন্দোলনের ১৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার বিকেলে খুলনা নগরীর উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের জেলা আহ্বায়ক মুনীর চৌধুরী সোহেল, সঞ্চালনা করেন সদস্য আল আমিন শেখ। বক্তব্য দেন ফুলতলা উপজেলা আহ্বায়ক মো. অলিয়ার রহমান, খালিশপুর থানা আহ্বায়ক আলমগীর হোসেন লিটু, খালিশপুর থানা সংগঠক আবু বক্কার সিদ্দিক, শ্রমিকনেতা মো. নূরুল ইসলাম।

সভায় জোনায়েদ সাকি দেশের বর্তমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনের জন্য ৪ দফা দাবি ঘোষণা করেন। দাবিগুলো হচ্ছে- বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে, আগামী ৩টি নির্বাচন অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের অধীনে হতে হবে। বিচারপতি, প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ সাংবিধানিক পদগুলোতে স্বাধীন সাংবিধানিক কমিশনের মাধ্যমে নিয়োগ দিতে হবে। সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে সংসদ সদস্যের কথা বলা এবং ভোটাধিকার প্রয়োগে স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে। সংসদে সংখ্যানুপাতিক ভোটের ভিত্তিতে আসন বণ্টন করতে হবে।