তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, “বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যে দেশের মানুষ হাসে। সরকার নাকি দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার জন্য অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তার এই বক্তব্যের মাধ্যমে প্রমাণিত হয়, কুমিল্লার ঘটনার পেছনে তাদের ইন্ধন ছিল।”

শনিবার বিকেলে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নুরুল আলমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শিমুল গুপ্তের সঞ্চালনায় সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর হোসেন তপু। প্রধান বক্তা ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রেজাউল করিম। রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় ছাত্রলীগের সভাপতি পদে ২৩ জন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে ২৯ প্রার্থী রয়েছেন। তবে এদিন কমিটি গঠন করা হয়নি।

আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, “সরকার দেশ চালায়, সরকার সব সময় চায় দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা থাকুক। মির্জা ফখরুল বলেছেন, ‘সরকার দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে’। তিনি কি মানুষকে বোকা ভেবেছেন? এতে দেশের মানুষ হাসে।”

ড. হাছান বলেন, “আজকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। কুমিল্লার ঘটনায় কারা মিছিল বের করেছে, সেই ভিডিও ফুটেজ আমাদের কাছে আছে। তারা কোন দলের সমর্থক, তারা কোন মতাদর্শে বিশ্বাস করে, সেগুলো বের করে জনসমক্ষে প্রকাশ করব।”

দেশের উন্নয়ন নিয়ে বিশ্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসার বিষয়টি তুলে ধরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, “এই প্রশংসা পছন্দ হয় না। ফলে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র হচ্ছে। বিএনপি-জামায়াত রাজনৈতিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়ে তারা এখন নানা ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছে। কুমিল্লার ঘটনার পেছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আছে। এর পেছনে বিএনপি-জামায়াতসহ ধর্মান্ধ গোষ্ঠী যুক্ত। তারা এ ঘটনা ঘটিয়ে সারাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চেয়েছে। প্রধানমন্ত্রী তা কঠোর হাতে দমন করেছেন।”

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ নেতা স্বজন কুমার তালুকদার, আবুল কাশেম চিশতী, শাহজাহান সিকদার, নজরুল ইসলাম তালুকদার, মুহাম্মদ আলী শাহ, ডা. মোহাম্মদ সেলিম, আকতার হোসেন খান, শফিকুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম তালুকদার, গিয়াস উদ্দিন খান স্বপন, যুবলীগের সভাপতি শামসুদ্দোহা সিকদার আরজু প্রমুখ।