প্রতারণার অভিযোগে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ই-অরেঞ্জের মালিকসহ সাতজনের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে মামলা করেছেন ভুক্তভোগী এক গ্রাহক। রোববার চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহনাজ রহমানের আদালতে মামলাটি দায়ের করেন ইকবাল হোছেন নামের ভুক্তভোগী এক গ্রাহক। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় আসামিরা হলেন, ই-অরেঞ্জ মালিক সোনিয়া মেহজাবিন, তার স্বামী মাসুকুর রহমান, সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা শেখ সোহেল রানা এবং প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা আমানুল্লাহ, বীথি আক্তার, জায়েদুল ফিরোজ ও নাজমুল হাসান রাসেল।

মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নাজমুস সাকিব বলেন, সারাদেশে ই-অরেঞ্জ প্রতিষ্ঠানটি পণ্য বিক্রির নামে লাখ লাখ গ্রাহকের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। আমরা চট্টগ্রামের প্রতারিত গ্রাহকদের টাকা ফেরত চেয়ে আদালতে মামলা করেছি। আশা করছি ভুক্তভোগীরা ন্যায় বিচার পাবেন।

মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, গত ২৭ মে’র পর থেকে বিভিন্ন সময় পণ্য কেনার জন্য ই-অরেঞ্জকে অর্থ প্রদান করেন ইকবাল হোছেন। তবে প্রতিষ্ঠানটি নির্দিষ্ট সময়ের পরও কোনো পণ্য সরবরাহ করেনি তাকে। অর্ডার নেওয়ার পর থেকে ই-অরেঞ্জ কর্তৃপক্ষ ফেসবুকে নোটিশের মাধ্যমে বিভিন্ন সময় গ্রাহকদের পণ্য সরবরাহের আশ্বাস দেয়। কিন্তু তারা পণ্য সরবরাহ না করে দেশের প্রায় এক লাখ গ্রাহকের ১১০০ কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে। এর মধ্যে ইকবাল হোছেনসহ ২৩ জন গ্রাহকের প্রায় এক কোটি ৩২ লাখ ৭০ হাজার ৯২৬ টাকা রয়েছে।