সাম্প্রদায়িক উস্কানিদাতাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহ সভাপতি ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী।

তিনি বলেন, যারা সহিংসতা করে তারা জঙ্গি। জঙ্গির কোনো ধর্ম থাকতে পারে না। সাম্প্রদায়িক উস্কানিদাতাদের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে।

শনিবার সকালে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও শান্তির পক্ষে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এই আহ্বান জানান। মেয়র আইভীর নেতৃত্বে নগরীর চাষাঢ়া থেকে মন্ডলপাড়া পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার সড়কের ফুটপাতে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে অংশ নেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন পেশাজীবী ও ধর্মীয় সংগঠনের নেতা-কর্মী।

আইভী বলেন, বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ কখনও সাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী নয়। ইসলাম অন্যের ধর্মের প্রতি সহনশীল থাকার শিক্ষা দিয়েছে। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী হয়ে বাংলাদেশ বিনির্মাণ করছেন। কুচক্রী মহল এই বাংলার জনগণকে প্রতিহত করতে হিন্দু-মুসলমানের সম্প্রতি নষ্ট করে দাঙ্গা বাঁধানোর চেষ্টা করছে। সরকারকে বেকায়দায় ফেলার জন্য খুবই সস্তা পদ্ধতি বেছে নিয়ে দুষ্কৃতিকারীরা। এদের শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানান আইভী।

‘কোনো ধর্মই হিংসার অনুমতি দেয় না’ মন্তব্য করে নাসিক মেয়র বলেন, একজন বিবেকবান মানুষ কখনই অন্য ধর্মের উপর আঘাত হানতে পারে না। আগুন লাগানো বা মানুষকে কুপিয়ে হত্যা করতে পারে না। কতিপয় মানুষ সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে সারাদেশে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘটাচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে অসম্ভব অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী মানুষের বসবাস। সম্প্রীতির শহর এই নারায়ণগঞ্জ। অথচ এই নারায়ণগঞ্জে যারা সম্প্রীতির কথা বলে জাতীয় স্বার্থকে বাদ দিয়ে ব্যক্তি আইভীকে নিয়ে রাজনীতি করেন তাদেরকে ধিক্কার জানাই।'

মেয়র আইভী বলেন, যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশে দাঁড়িয়ে বহির্বিশ্বের ষড়যন্ত্রকে রুখে দেওয়ার কথা, তখন নারায়ণগঞ্জের চুনোপুটি নেতারা আইভীর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে কথা বলেন, পক্ষান্তরে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধাচারণ করেন। দেশ যখন অস্থির, সারা বাংলাদেশে যখন আগুন জ্বালানোর চেষ্টা চলছে তখন শহীদ মিনারের মতো পবিত্র জায়গায় দাঁড়িয়ে যারা মিথ্যাচার করে তারাই এই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর জন্য উস্কানি দিচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জে বিগত এক বছর যাবৎ অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে চক্রান্ত করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করে আইভী বলেন, 'আমি তাদেরকে সাবধান করে দিতে চাই। এই সম্প্রীতির শহরে রাজনৈতিক কারণে ব্যক্তি আইভীর বিরুদ্ধাচরণ করতে ষড়যন্ত্র করার জন্য হিন্দুদের মধ্যে বিভেদ তৈরি করবেন না।’

মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন, আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আবদুল কাদির, আদিনাথ বসু, আসাদুজ্জামান, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক নিজাম উদ্দিন আহমেদ, জেলা যুবলীগের সহ সভাপতি আহাম্মদ আলী রেজা রিপন, মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আহাম্মদ আলী রেজা উজ্জ্বল, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের আবু জাফর, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাবেক সভাপতি শঙ্কর সাহা, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ভবানী শঙ্কর রায়সহ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের নেতা, আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।