উচ্ছেদের এক বছরের ব্যবধানে ফের রাতের অন্ধকারে পলিথিন ও বাঁশ দিয়ে অর্ধশত দোকান নির্মাণ করা হয় কক্সবাজার শহরের কলাতলী রোড়ের সুগন্ধা পয়েন্ট রাস্তার উত্তর পাশে। আদালতের সাইনবোর্ড লাগিয়ে রোববার গভীর রাতে সরকারি জমি দখল করে দোকানঘর নির্মাণ করেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা জসিম উদ্দিন ছিদ্দিকী। সোমবার বিকেলে সেই স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয় কক্সবাজার জেলা প্রশাসন।

রোববার রাতে ট্রাকে করে বাঁশ ও পলিথিন এনে অর্ধশতাধিক দোকানঘর নির্মাণ করা হয় সরকারি জমিতে। তাড়াহুড়া করে কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে স্থানীয় কয়েকজন চিহ্নিত ভূমিদস্যুর উপস্থিতিতে এগুলো নির্মাণ করা হয়। অভিযোগ পাওয়া গেছে, দোকান নির্মাণের নামে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা জসিম উদ্দিন।

এদিকে রাতারাতি সরকারি জমিতে স্থাপনা নির্মাণের বিষয়টির খরব পেয়ে সোমবার বিকেলে সেখানে পরিদর্শনে যায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের একটি টিম। এরপর নির্মাণ করা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু করে জেলা প্রশাসন।

এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত জসিম উদ্দিনের মোবাইল ফোনে কল করা হলে অন্য একজন রিসিভ করে জানান, জসিম ফোনের কাছে নেই।

উচ্ছেদ অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিন আল পারভেজ বলেন, জায়গাটি বারবার দখল করছে একটি চক্র। যাতে ভবিষ্যতে এভাবে দখল হতে না পারে সেজন্য সেখানে একটি প্রকল্প করার পরিকল্পনা রয়েছে।

প্রায় এক বছর আগে সুগন্ধা পয়েন্টের উত্তর পাশে শতাধিক অবৈধ দোকান উচ্ছেদ করে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসন।