কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার ঢালুয়া ইউনিয়নের চাঁন্দলা গ্রামে এক বৃদ্ধাকে হত্যার পাঁচ দিন পর ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেছে র‌্যাব। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-২ কুমিল্লা ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন জানান, জবা বেগম নামের ওই বৃদ্ধাকে স্বর্ণালঙ্কার, মালামাল ও মোবাইল লুট করতেই বাড়িতে ঢুকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছিল। হত্যাকাণ্ডের কোনো সূত্র পাচ্ছিল না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

পরে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে খোরশেদ আলম (২৫) নামের একজনকে রোববার ভোরে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। 

র‌্যাব জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে খোরশেদ বৃদ্ধাকে খুনের কথা স্বীকার করেছে। 

নিহত জবা বেগম (৭৫) নাঙ্গলকোট উপজেলার চাঁন্দলা গ্রামের মৃত আবদুর রশিদের স্ত্রী। ঘাতক খোরশেদ আলম (২৫) একই উপজেলার সিজিয়ারা গ্রামের মৃত আবদুল গফুরের ছেলে। 

র‌্যাব জানায়, বৃদ্ধা জবা বেগমের ৫ ছেলে সন্তানের মধ্যে ৪ জন প্রবাসী ও একজন কুমিল্লা শহরে থাকেন। প্রতিদিনের ন্যায় গত সোমবার (২৫ অক্টোবর) তিনি নিজ ঘরে একাই ঘুমিয়ে ছিলেন। পাশের ঘরে ছিলেন এক ছেলের স্ত্রী। মঙ্গলবার সকালে তার ছেলের স্ত্রী শাশুড়ির ঘরে গিয়ে তার রক্তাক্ত মরদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশকে অবহিত করেন। পরে পুলিশ ওই বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করে। 

এ ঘটনায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে নাঙ্গলকোট থানায় মামলা হয়।

মোহাম্মদ সাকিব হোসেন জানান, খোরশেদের কাছ থেকে ভিকটিমের স্বর্ণালঙ্কার, মালামাল ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। 


বিষয় : নাঙ্গলকোট উপজেলা ঢালুয়া ইউনিয়ন চাঁন্দলা গ্রাম

মন্তব্য করুন