নাটোরের গুরুদাসপুরে পাওনা টাকার জেরে কাশেম আলী (৪২) নামের এক কৃষককে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে ব্যবসায়ী কেনালের বিরুদ্ধে। 

বুধবার সকাল ১০টার দিকে ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের নাজিরপুর ডিগ্রি কলেজ মোড়ে। 

নিহত কৃষক কাশেম আলী নাজিরপুর ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের সাইদ আলীর ছেলে। অভিযুক্ত কেনাল পাশের গুপিনাথপুর গ্রামের মৃত রজব আলীর ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বিদেশ যাওয়ার জন্য কাশেম আলীকে টাকা দিয়েছিলেন কেনাল। করোনার সময় বিদেশ না যেতে পেরে কিছু টাকা ফেরত নেন কেনাল। বাকি ৮০ হাজার টাকা বকেয়া ছিল। সেই টাকার মধ্যে ৫০ হাজার টাকা কাশেম কেনালকে দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু কেনালের কাছে কাশেমের চেক রাখা ছিল। টাকা দেওয়ার সময় কেনালের কাছে চেক ফেরৎ চান কাশেম। চেক হারিয়ে গেছে বলে কেনাল দাবি করেন। এ কারণে টাকা দেননি কাশেম। সেই টাকার জেরে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে নাজিরপুর বাজারের উদ্দেশে যাচ্ছিলেন কাশেম। নাজিরপুর ডিগ্রি কলেজের সামনে কাশেম পৌঁছালে তাকে কেনাল প্রথমে মাথায় আঘাত করেন। কাশেম রাস্তায় পড়ে গেলে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ছুরিকাঘাত করেন কেনাল। কাশেমের চিৎকারে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠান। পরে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. আব্দুল মতিন জানান, অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে চেষ্ট চলছে।