নওগাঁর রানীনগর উপজেলার একডালা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও তার কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে ১৫টি মোটরসাইকেল ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। 

এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। তবে নৌকার প্রার্থীর দাবি, উল্টো তার কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলা ও দুটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আবাদপুকুর বাজার চারমাথা মোড়ে।

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী (মোটরসাইকেল) রুহুল আমিন জানান, নির্বাচনী প্রচার শেষে সন্ধ্যার পর কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে আবাদপুকুর বাজার চারমাথায় নিজ অফিসে যান। এর কিছুক্ষণ পর হঠাৎ নৌকার প্রার্থী শাহাজাহান আলীসহ ৪০-৫০ জন লোক তার অফিসে হামলা চালায়। হামলাকারীরা তার কর্মী-সমর্থকদের মারধর এবং ১৪-১৫টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। 

এ সময় তারা নির্বাচনী প্রচার বন্ধ করে মাঠ ত্যাগ করতে হুমকি দিয়ে চলে যায়। হামলাকারীদের মারধরে নয়ন, লুৎফর রহমানসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে হামলা এবং ভাঙচুরের অভিযোগ অস্বীকার করে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহাজাহান আলী জানান, ইউনিয়নে প্রচার শেষে গুয়াতা গ্রামে যাচ্ছিলেন। তারা আবাদপুকুর চারমাথা মোড়ে পৌঁছলে দেখতে পান স্বতন্ত্র প্রার্থী রুহুলের কর্মীরা রাস্তা রোধ করে মিছিল করছে। সংঘর্ষ এড়াতে তাদের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় পেছন থেকে প্রার্থী রুহুলের লোকজন হামলা চালায়। এ সময় তারা তার কর্মী-সমর্থকদের মারধর ও দুটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

এদিকে হামলা এবং ভাঙচুরের ঘটনাটি মোবাইল ফোনে এবং একটি সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা ভিডিও ফুটেজ ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

রানীনগর থানার ওসি মো. শাহিন আকন্দ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এ ব্যাপারে উভয়পক্ষ লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।