সংগঠনবিরোধী কাজ করার অভিযোগে ফরিদপুরের সালথা উপজেলা আওয়ামী লীগের ২১ নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ ছাড়া স্থানীয় সহযোগী সংগঠনের চার নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

শনিবার উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মজিবুল হকের স্বাক্ষর করা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বহিষ্কার হওয়া নেতারা হলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হাবিবুর রহমান হামেদ ও ফজলুল মতিন বাদশা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওহাব মোল্যা, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক আবদুল আলীম মোল্যা, সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার রেজাউর রহমান (চয়ন), কার্যনির্বাহী সদস্য নুরুজ্জামান ঠাকুর (টুকু), সোনাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাকিম মোল্যা, সাধারণ সম্পাদক সিরাজ মোল্যা, সহসভাপতি আবদুর রহিম মাতুব্বর, খলিল মোল্যা ও আবদুল আওয়াল মোল্যা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেন্টু মুন্সী, আটঘর ইউনিয়নের যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক শাহজাহান মোল্যা, সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জাকির হোসেন, গট্টি ইউনিয়নের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আরশাদ মোল্যা, রামকান্তপুর ইউনিয়নের দপ্তর সম্পাদক সুজায়েত হোসেন ওয়াদুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক রকিব তালুকদার, যদুনন্দী ইউনিয়নের সহসভাপতি আকরাম হোসেন, মাঝারদিয়া ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিম মিয়া, বল্লভদী ইউনিয়নের সভাপতি ইউনুছ মোল্যা ও সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলম।

এ ছাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের চার নেতা হলেন- সালথা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ইমারত হোসেন পিকুল ও সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হোসেন, শ্রমিক লীগের সভাপতি খন্দকার সাইফুর রহমান শাহিন এবং যুবলীগের সহসভাপতি খন্দকার শাহজাহান সাজ্জাদ।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন বলেন, দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদকের এক চিঠিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও মদদদাতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট ২১ নেতাকে বহিষ্কার এবং চার নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বহিষ্কারের অনুলিপি জেলা আওয়ামী লীগ ও কেন্দ্রীয় সংগঠনকে পাঠানো হয়েছে।