সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) চলমান ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা, ইজিবাইক ও টমটমের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানকালে নির্বাহী ম্যাজেস্ট্রেটের সঙ্গে খারাপ আচরণ ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অপরাধে দুই `ছাত্রলীগ কর্মীকে' দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে নগর ভবন এলাকায় তাদের কারাদণ্ডের আদেশ দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মতিউর রহমান খাঁন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, নগরীর মিরাবাজার এলাকার আগপাড়া মৌসুমী-৮২ নম্বর বাসার হোসেন চৌধুরীর ছেলে মাজেদ আহমদ চৌধুরী ও মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার চন্ডিনগর গ্রামের গৌছ উদ্দিনের ছেলে তারেক আহমদ। তারা ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

সিসিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে নগরীর আম্বরখানায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মতিউর রহমান খাঁন। ওই সময় রেজিস্ট্রেশনবিহীন একটি মোটরসাইকেল রাস্তায় ভুল পার্কিং করেন মাজেদ আহমদ নামের এক যুবক। মাজেদকে জরিমানা করতে গেলে তিনি ভ্রাম্যমাণ আদালতের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন। এমনকি ফোন করে তারেক আহমদ নামের আরেক জনকে নিয়ে আসেন। মাজেদ ও তারেক নিজেদের ছাত্রলীগ কর্মী পরিচয় দিয়ে খারাপ আচরণ করেন। এ সময় সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করে। পরে নগর ভবনের সামনে নিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ১৮৬ ধারায় উভয়কে দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন ম্যাজিস্ট্রেট মো. মতিউর রহমান খান।

আদালত পরিচালনাকালে উপস্থিত কোতোয়ালি থানার শাহজালাল তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই আব্দুর রহিম জানান, মাজেদ ও তারেক সরকারি কাজে বাধা দেন, ম্যাজিস্ট্রেটের সঙ্গে খারাপ আচরণ করেন ও পুলিশকেও গালমন্দ করেন।

এদিকে নগরীর আম্বরখানা, পাঠানটুলা, মদীনা মার্কেট ও ঘাসিটুলা এলাকায় সিসিকের নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে দু'টি ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা জব্দ করা হয়েছে।