সুনামগঞ্জের ছাতকে এতিমখানায় তিন শিশুকে নির্যাতনকারী মাদরাসা সুপার মাওলানা আব্দুল মুকিতকে (৪০) কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তিনি উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের রহমতপুর গ্রামের আব্দুল গনির ছেলে। তার বিরুদ্ধে বুধবার থানার উপ-পরিদর্শক হাবিবুর রহমান (পিপিএম) বাদী হয়ে শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। 

ওই মামলায় মাদরাসা সুপারকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে সুনামগঞ্জ কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে গোবিন্দগঞ্জ এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

মাদরাসা সুপার মাওলানা আব্দুল মুকিতকে বুধবার বিকেলে সুনামগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে তিনি ১৬৪ ধারার জবানবন্দি দেন। তিনি আদালতে ঘটনার দায় স্বীকার করে বলেন, ওই তিন শিশু মাদরাসার ফ্লোরে প্রস্রাব করে দুষ্টুমী করায় তাদের শাস্তি হিসেবে পেটানো হয়।

উল্লেখ্য, উপজেলার কালারম্নকা ইউনিয়নে 'হাজী ইউসুফ আলী এতিমখানা' নামে হাফিজিয়া মাদরাসায় গত বছরের ডিসেম্বর মাসে একদিন ক্লাস চলাকালে মাদরাসা সুপার আব্দুল মুকিত শিশু আবু তাহের, রবিউল ও সুফিউর রহমানকে বেধড়ক পেটানো শুরু করেন। শিশু নির্যাতনের ঘটনাটি কৌশলে ভিডিও করে রাখেন একই মাদরাসার জনৈক সহকারী শিক্ষক। সম্প্রতি শিশু নির্যাতনের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে প্রকাশের পর এটি ভাইরাল হওয়ায় তোলপাড় শুরু হয়।

পুলিশের দায়ের করা শিশু নির্যাতন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দেওয়ান উজ্জল হোসেন বলেন, এ ঘটনায় নির্যাতনকারী শিক্ষকসহ ভিডিও ধারণকারী অপর শিক্ষককেও মামলার আসামী করা হয়েছে। দু'জনের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দেওয়ায় ভিডিওটি ভাইরাল করা হয়। অভিযুক্ত অপর শিক্ষককেও গ্রেপ্তারের জোর চেষ্টা চলছে।